রেকর্ড গড়ে জুনিয়রদের পাশে ফেডেক্স

লন্ডন : পয়া উইম্বলডনে পা রাখলেই যেন রেকর্ড বইয়ে নাম তোলেন রজার ফেডেরার।

সোমবার রাতে ইতালির লরেঞ্জো সোনেগোকে হারিয়ে উইম্বলডনের শেষ আটে পা রেখেছেন সুইস কিংবদন্তি। টেনিসের ওপেন এরায় অল ইংল্যান্ড টেনিস ক্লাবের দ্য চ্যাম্পিয়নশিপে ছেলেদের সিঙ্গলসে তিনিই বয়স্কতম কোয়ার্টার ফাইনালিস্ট। একমাস পরেই ৪০ বছর পূর্ণ হবে। কিন্তু প্রিয় ঘাসের কোর্টে র‌্যাকেট হাতে নামলে অন্তত দেড় দশক বয়স কমে যায় ফেডেরারের। প্রি-কোয়ার্টারে যেমন লরেঞ্জোকে ৭-৫, ৬-৪, ৬-২ স্ট্রেট সেটে হারাতে সময় নিলেন মাত্র সোয়া ২ ঘণ্টা। চারটি গ্র‌্যান্ড স্ল্যাম মিলিয়ে ৫৮তম কোয়ার্টার ফাইনাল। সেমিফাইনালের পথে তাঁর প্রতিপক্ষ ডানিল মেদভেদেভকে বাড়ি পাঠানো হুবার্ট হুরকাজ। তিনি জিতেছেন ২-৬, ৭-৬ (৭/২), ৩-৬, ৬-৩, ৬-৩ সেটে।

- Advertisement -

সোমবার বৃষ্টির জন্য প্রথম সেটের মাঝে কিছুক্ষণ খেলা বন্ধ ছিল। তার আগে অবশ্য ফেডেক্সকে কয়েকবার পরীক্ষার মুখে ফেলেন লরেঞ্জো। এমনকি ফেডেরারের সার্ভিসও ভাঙেন ইতালির এই প্লেয়ার। কিন্তু বৃষ্টির পর ভেজা কোর্টে খেলতে নেমে ছন্দ খুঁজে পাননি তিনি। ফলে পরের দুই সেট জিততে তেমন পরিশ্রম করতে হয়নি ফেডেরারকে। যদিও ৮ বারের উইম্বলডনজয়ী প্রতিপক্ষের পাশেই দাঁড়িয়েছেন। তাঁর কথায়, আমি আগে খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়েছে। তবে এই ছেলেগুলো একেবারেই তরুণ। ফলে সামলে উঠতে পারেনি। এভাবে খেলা না হলেই মনে হয় ভালো হত।

ফেডেরারের প্রশংসা পেয়েছেন তিউনিশিয়ার অনস জাবেউর। উত্তর আফ্রিকা তথা আরব জাতিগোষ্ঠীর প্রথম মহিলা হিসেবে উইম্বলডনের কোয়ার্টারে পৌঁছানোর জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছে ফেডেক্স। ২৬ বছরের অনস নিজেই বলেছেন সে কথা, ম্যাচের শেষ রজার (ফেডেরার) নিজে আমাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা। কেরিয়ারে কিছু করতে পেরেছি বলে মনে হচ্ছে। আমি অ্যান্ডি রডিকের ভক্ত। কিন্তু রজারের মতো একজন কিংবদন্তির থেকে শুভেচ্ছা পাওয়ার মানেই আলাদা। এটা আমাকে পরবর্তী লড়াইয়ে প্রেরণা দেবে।