ফিফা ই-স্পোর্টসে আগুয়েরোর সঙ্গে রাওলিন বর্জেস

সুস্মিতা গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা : ঠিক একে অপরের বিরুদ্ধে না হলেও সার্জিও আগুয়েরোর সঙ্গে একই টুর্নামেন্টে খেলছেন রাওলিন বর্জেস, ভারতীয় ফুটবল সমর্থক তো দূরের কথা, জাতীয় দলের এই মিডিও নিজেও সম্ভবত স্বপ্নেও ভাবেননি। কিন্তু বাস্তবে না হলেও নেট দুনিয়ায় অসম্ভব নয়। আর সেটাই করতে চলেছে সিটি ফুটবল গ্রুপ।

আইএসএলের দৌলতে বিশ্ব ফুটবল তারকারা এখন এদেশের ঘরের লোক। তবে আলেজান্দ্রো দেল পিয়েরো, নিকোলাস অ্যানেলকা, রবার্তো কার্লোস, লুসিওরা সকলেই এসেছেন তাঁদের সোনালি অতীতকে পিছনে ফেলে রেখে, ফুটবল জীবনের সায়াহ্নে এসে। তাই লিওনেল মেসির ঘনিষ্ঠ বন্ধু বলেই নয়, ম্যাঞ্চেস্টার সিটির প্রথম সারির তারকা আগুয়েরোকে এখন হাতের কাছে পাওয়ার কোনওরকম সম্ভাবনাই নেই। কিন্তু কিছুটা হলেও স্বপ্ন সত্যি করার সুযোগ পাচ্ছেন রাওলিন। আগামী ১৩ জুন, শনিবার ফিফা২০ চ্যালেঞ্জে অংশ নেবেন আগুয়েরো থেকে শুরু করে রাওলিন সহ বিভিন্ন দেশের সিটি গ্রুপের মহিলা ও পুরুষ ফুটবল তারকারা। সঙ্গে থাকার সুযোগ পাচ্ছেন মনোনীত ফ্যানরাও।

- Advertisement -

গত মরশুমেই যেহেতু ম্যাঞ্চেস্টার সিটির সঙ্গে সংযুক্তি ঘটেছে মুম্বই সিটি এফসি-র, তাই রাওলিনের ভাগ্যের শিকে ছিঁড়েছে। যেখানে ভার্চুয়াল পিচে নিজেদের স্কিল দেখিয়ে সমর্থকদের আনন্দ দেবেন তারকারা। মোট আটটি ক্লাব অংশ নিতে চলেছে এই খেলায়। ম্যান সিটি ও মুম্বই ছাড়া বাকিরা হল নিউ ইয়র্ক সিটি এফসি, মেলবোর্ন সিটি, ইয়োকোহামা এফ মেরিনোস, জিরোনা এফসি, মন্টেভিডিও সিটি টর্ক ও সিচুয়ান জিউনিউ এফসি। সিটি গ্রুপের তরফে একটি পোস্টার বানানো হয়েছে। যার একেবারে সামনে মূল আকর্ষণ হিসেবে দেখা যাচ্ছে আগুয়েরোকে। তবে তাঁর মতো তারকার সঙ্গে একই পোস্টারে রাওলিন বর্জেসের থাকাও কম গর্বের ব্যাপার নয় ভারতীয়দের কাছে।

রাওলিন প্রথম গেম খেলবেন মৃদুল শর্মা নামের এক মুম্বই সিটি এফসি সমর্থকের বিরুদ্ধে ভারতীয় সময় বিকেল সাড়ে পাঁচটায়। সেখানে সের্জিও আগুয়েরোর খেলা দেখা যাবে ভারতীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায়। শনিবার বিভিন্ন দেশের ফুটবলাররা আলাদা আলাদা সময়ে তাঁদের খেলা শুরু করবেন। চলবে বেশি রাত পর্যন্ত। এই চ্যালেঞ্জ গেম থেকে ওঠা টাকা য়াবে এইসব দেশের বিভিন্ন ফাউন্ডেশনে। কারণ, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন শহরের মানুষ এক কঠিন সময়ে মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন। আক্রান্ত মানুষের সেরে ওঠার কাজেই লাগানো হবে এই টাকা। ভারতীয় দর্শকরা তাঁদের অনুদানের মাধ্যমে অস্কার ফাউন্ডেশনের কাজে সাহায্য করতে পারবেন বলে জানানো হয়েছে মুম্বই সিটি এফসি-র তরফে। এই ফাউন্ডেশন মূলত মুম্বই, দিল্লি, কর্ণাটক ও ঝাড়খণ্ডের বাচ্চাদের জন্য গত ৯ বছর ধরে কাজ করে যাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত ১২ হাজারেরও বেশি শিশুর পাশে দাঁড়িয়েছে এই ফাউন্ডেশন।

গত মরশুমের পারফরমেন্সের ভিত্তিতে রাওলিন ফ্যানস প্লেয়ার অব দ্য ইয়ার হিসেবে নির্বাচিত হওয়াতেই এই সুযোগ পাচ্ছেন বলে খবর। তাঁর নিজের প্রতিক্রিয়া, করোনা ভাইরাসের জেরে সারা পৃথিবীর মানুষ এখন ঘরবন্দি। সেখানে ই-স্পোর্টস একটা দারুণ মঞ্চ সারা পৃথিবীকে এক ছাতার তলায় এনে মানসিকভাবে উজ্জীবিত করার জন্য। গ্লোবাল ফিফা চ্যালেঞ্জ এমনিতেই দারুণ একটা খেলা, সারা পৃথিবীতে অসম্ভব জনপ্রিয়। সিএফজি গ্রুপের এটা সত্যিই খুব ভালো উদ্যোগ, বিশেষ করে একটা ভালো কাজে বিষয়টা লাগবে বলে আমি আরও বেশি খুশি।

সিটি ফুটবল গ্রুপের মার্কেটিং অফিসার নুরিয়া টারের মন্তব্য, এই কঠিন সময়ে সাধারণ ফুটবল সমর্থকরা যখন কঠিন সময়ে মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন, তখন ই-স্পোর্টস একটা দারুণ মাধ্যম মন ভালো করার। গত তিনমাস ধরেই সিটি গ্রুপ চেষ্টা করছে নানাভাবে আমাদের সমর্থকদের আনন্দ দেওয়ার। এই প্রথম সিটি গ্রুপের সব ক্লাব একজোট হয়ে নামতে চলেছে বলে আশা করা যাচ্ছে, ব্যাপারটা অত্যন্ত আকর্ষণীয় হবে।