মণ্ডপ থেকে ১০ মিটার দূরে গোল রেখার মধ্যে দাঁড়িয়ে অঞ্জলি

245

হেমতাবাদ: মণ্ডপ থেকে ১০ মিটার দূরে গোল রেখার মধ্যে দাঁড়িয়ে এবারে অঞ্জলি দিতে হবে বাসিন্দাদের। একদিকে হাইকোর্টের নির্দেশ, অন্যদিকে করোনা আবহের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রত্যেকে যাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মণ্ডপ থেকে ১০ মিটার বাইরে থেকে অষ্টমীর দিন অঞ্জলি দিতে পারেন তার সমস্ত বন্দোবস্ত করেছেন হেমতাবাদ কালিবাড়ি সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটির সদস্যরা।

হেমতাবাদ ব্লকের ঐতিহ্যবাহী পুজোগুলির মধ্যে অন্যতম হেমতাবাদ কালিবাড়ি সর্বজনীন দুর্গোপুজো। হেমতাবাদ থানা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এই পুজো এবারে ৭৪তম বর্ষ। প্রতিবছর এখানকার পুজো মণ্ডপ ও আলোকসজ্জা মন কাড়ে সকলের। তবে এবছর আয়োজন অনেকটাই কাটছাঁট করেছেন উদ্যোক্তারা। সরকারি বিধিনিষেধ মেনেই পুজো করছেন তাঁরা। ১৯৪৬ সালে এখানকার পুজোর সূচনা হয়। ঐতিহ্য মেনে এবছর পুজো হলেও থাকছে না জৌলুশ। তবে পুরোনো ঐতিহ্য বজায় রেখে রীতিনীতি মেনে পুজো হচ্ছে। তিনদিক খোলা রেখে মণ্ডপ তৈরির কাজ চলছে। দর্শনার্থীদের পুজো মণ্ডপ এলাকায় মাস্ক পরে ও স্যানিটাইজার নিয়ে ঢুকতে হবে। তবে মণ্ডপের ভিতরে কেউ ঢুকতে পারবেন না। জানা গিয়েছে, প্রতিবছর অষ্টমীর দিন অঞ্জলি দিতে স্থানীয়দের পাশপাশি পুলিশ, ব্লক ও জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরাও আসেন এই পুজো মণ্ডপে। পুজোর দিনগুলিতে খুবই ভিড় হয়। পুজো কমিটির অন্যতম সদস্য সুরজিৎ সেনগুপ্ত জানান, এবছর করোনা আবহের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে এখানে পুজো হচ্ছে। মণ্ডপের বাইরে মাটিতে গোলাকার রেখা কেটে দেওয়া হবে। সেই রেখার উপর দাঁড়িয়ে অঞ্জলি দিতে হবে এবং প্রতিমা দর্শন করতে হবে।

- Advertisement -

পুজো কমিটির সভাপতি ওসি দিলীপ রায় বলেন, ‘পেশাগত দায়বদ্ধতার কারণে আনন্দ উৎসবে সরাসরি শামিল হতে পারি না। এই পুজোর সঙ্গে পুলিশকর্মীরা ও তাঁদের পরিবার জড়িত থাকে বলে সকলের সঙ্গে আনন্দ ভাগ করে নেওয়ার চেষ্টা করি। তবে এবছর করোনা আবহের জন্য হাইকোর্টের নির্দেশিকা মেনেই পুজোর মণ্ডপ তৈরি হচ্ছে। আমাদের পুজো ছোট হলেও মাঠে যেহেতু যথেষ্ট জায়গা রয়েছে সেহেতু মণ্ডপ থেকে ১০ মিটার দূরে বাঁশের ব্যারিকেড করে দেওয়া হবে। ব্যারিকেডের পর সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্থানীয় বাসিন্দারা অঞ্জলি দেবেন এবং দর্শনার্থীরা প্রতিমা দর্শন করবেন। হাইকোর্টের সমস্ত নির্দেশিকা মেনেই এখানকার পুজো হবে বলে জানান তিনি। এই পরিস্থিতিতে সমস্ত সরকারি নির্দেশ মেনে পুজোটিকে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে মডেল হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করছেন উদ্যোক্তারা।