পিকের সঙ্গে সম্পর্ক অবনতি নিয়ে গুঞ্জন

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ২৬ জুন : বিহারের মতো এই রাজ্যেও ভোটকৌশলী প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে শাসকদলের সম্পর্কের অবনতি হচ্ছে বলে খবর রটেছে। লাগাতার তাঁদের ওপর পিকে ও তাঁর সহযোগীরা নজরদারি করছেন বলে একাধিক তৃণমূল নেতার অভিয়োগ। এই বিষয়ে দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে নালিশ জানানোর কথা ভাবলেও সবসময় এগোতে পারছেন না। সূত্রের খবর, সম্প্রতি করোনা, লকডাউন, আমপানে দলের একাংশের বিরুদ্ধে দুর্নীতি নিয়ে ক্ষুব্ধ পিকে। এমন চললে আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচনে ফের ক্ষমতায় আসা দুঃসাধ্য বলেও মন্তব্য করেন। যা নিয়ে দলের দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের বিরুদ্ধে সক্রিয় হন খোদ মুখ্যমন্ত্রীও। সম্প্রতি আমপান দুর্গতদের ত্রাণ নিয়ে বিরোধীদের লাগাতার অভিযোগে কমিটি করতে কার্যত বাধ্য হন তিনি। র‌্যাশন দুর্নীতির বিরুদ্ধেও প্রকাশ্যে তোপ দাগেন। তাঁর এইসব পদক্ষেপে দলের অন্দরের একাংশে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। এমনকি অনেকে গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে গোপনে যোগাযোগও করছেন বলে সূত্রে খবর। একদা বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার ও তাঁর দলের সঙ্গে হৃদ্য সম্পর্ক থাকলেও পরে তার চূড়ান্ত অবনতি হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর সাংসদ ভাইপোর সঙ্গে পিকের হৃদ্য সম্পর্ক থাকলেও দলের একাংশ বিরোধিতা করায় কিছুটা হলেও বিপাকে শীর্ষ নেতৃত্ব। অন্যদিকে, গেরুয়া শিবিরে যাওয়া মুকুল রায় বিভিন্ন বিষয়ে ক্ষুব্ধ বলে প্রকাশ। এমনকি দলের রাজ্য দপ্তরে না গিয়ে তিনি অন্যত্র (সল্টলেকে) কার্যালয় খোলার চেষ্টা করছেন বলে গুঞ্জন উঠেছে। ২০২১-এর আগে রাজ্য রাজনীতি কোনদিকে যাবে, তা এখন বলা মুশকিল বলে মনে করেন রাজনৈতিক মহল।