টেনিসে গড়াপেটার অভিযোগে ধৃত সিজিকোভা

প্যারিস : প্রথম রাউন্ডে ফরাসি ওপেনে অভিয়ান শেষ হয়েছে। তবে এখনই বাড়ি ফেরা হচ্ছেন না রাশিয়ার ইয়ানা সিজিকোভার। ম্যাচ গড়াপেটার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে বৃহস্পতিবার তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে প্যারিসের পুলিশ। শহরের কৌসুলির অফিস থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

খেলোয়ার হিসেবে সিজিকোভা প্রথম সারি দূরের কথা, দ্বিতীয় সারিতেও নেই। তবে সকলকে ছাপিয়ে এখন তিনিই শিরোনামে। এবার মেয়েদের ডাবলসে প্রথম রাউন্ডে হেরেছেন সিজিকোভা ও তাঁর সঙ্গী একাতেরিনা সিজিকোভা। অস্ট্রেলিয়ার স্টর্ম স্যান্ডার্স ও আজিয়া টমলিয়ানোভিচের কাছে ৬-১, ৬-১ স্ট্রেট সেটে হেরে বিদায় নিয়ছেন তাঁরা। তারপরই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সিজিকোভাকে গ্রেপ্তার করার পর তাঁর হোটেলের ঘরে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ।

- Advertisement -

তবে ২৬ বছরের সিজিকোভা এবছরের ফরাসি ওপেনে গড়াপেটায় অভিযুক্ত নন। তিনি গতবছর মেয়েদের ডাবলসে একাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। ২০২০ সালে রোলাঁ গারোয় এবারের মতো প্রথম রাউন্ডেই হেরেছিলেন তিনি। সেবার তাঁর সঙ্গী ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাডিসন ব্রেঙ্গল। রোমানিয়ার আন্দ্রেয়া মিতু এবং প্যাট্রিসিয়া মারিয়া টিগ জুটির কাছে হারেন তাঁরা। ওই ম্যাচ নিয়ে আসা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অক্টোবর থেকে তদন্ত শুরু করে ফরাসি পুলিশ।

প্যারিসের কৌসুলির অফিস থেকে জানানো হয়েছে, ফরাসি ওপেন বা এই ধরণের প্রতিযোগিতার ম্যাচ নিয়ে জুয়াড়িদের বাজি ধরা অস্বাভাবিক নয়। তবে সাধারণত বড় অঙ্কের লেনদেন তারকাদের ম্যাচ ঘিরেই হয়। সিজিকোভাদের ওই ম্যাচে তাঁদের হারের পক্ষে অস্বাভাবিক অঙ্কের বাজি ধরা হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগও আসে। সিজিকোভা বা ওই ম্যাচের বাকি তিন প্লেয়ারের বিচারে বাজির পরিমান অনেকটাই বেশি হওয়ায় তদন্ত শুরু করা হয়।

পুলিশ সূত্রে খবর, অভিযোগ পাওয়ার পর ফরাসি পুলিশের একটি ইউনিট ঘটনার তদন্ত শুরু করে। ওই ইউনিট ম্যাচ গড়পেটা ও জুয়া সংক্রান্ত অপরাধের তদন্তের বিষয়ে অভিজ্ঞ। আগেও তারা বেলজিয়ান পুলিশের সঙ্গে একত্রে টেনিসে গড়পেটা বন্ধ করতে কাজ করেছে। জানা গিয়েছে, গতবছর সেপ্টেম্বরে দশ নম্বর কোর্টে ওই ম্যাচ হয়। ম্যাচের দ্বিতীয় সেটের পঞ্চম গেমে সিজিকোভার আচরণ নিয়ে সন্দেহ রয়েছে তদন্তকারীদের। ওই সেটে দুবার ডাবল ফল্ট (সার্ভ করার সময় পরপর দুবার ভুল করে পয়েন্ট দেওয়া) করেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে ডব্লিউটিএ বা ফরাসি ওপেন কর্তৃপক্ষ এখনও মুখ খোলেনি।