আত্মজীবনী লিখছেন সইফ আলি খান

950

মুম্বই: কিছুদিন আগেই জানাগেছে, প্রভাসের ‘আদিপুরুষ’ ছবিতে অভিনয় করতে চলেছেন সইফ আলি খান। এর মধ্যে এল আরও একটি খবর। এর মধ্যে এল আরও একটি খবর। আত্মজীবনী লিখছেন সইফ। ১৬ অগাস্ট জীবনের ৫০তম বছরে পা রেখেছেন তিনি। বড়ো মেয়ে সারা আলি খানের বয়স যখন ২৫ বছর, তখন নিজের চতুর্থ সন্তানের প্রতীক্ষা করছেন সইফ। নিজের ঘটনাবহুল জীবনের কাহিনী আত্মজীবনীতে তুলে ধরছেন ‘হাম-তুম’ নায়ক।

পতৌদির তৎকালীন নবাব তথা ভারতীয় ক্রিকেট টিমের প্রাক্তন অধিনায়ক মনসুর আলি খান পতৌদি এবং অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুরের সন্তান সইফ আলি খান। মায়ের পেশাকেই নিজের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন। নয়ের দশকে কাজলের বিপরীতে ‘বেখুদি’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে সইফের ডেবিউ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রথম শিডিউলের শুটিংয়ের পরই পরিচালক তাঁকে অপেশাদার বলে বাদ দিয়ে দিয়েছিলেন। সইফের বদলে চরিত্রটি করেছিলেন কমল সাধনা। পরে যশ চোপড়ার পরম্পরা ছবির মাধ্যে বলিউডে সইফের সফর শুরু হয়। তাঁর আগেই অবশ্য নিজের থেকে ১২ বছরের বড়ো অমৃতা সিংকে বিয়ে করেছিলেন সইফ। অমৃতা ও সইফের কন্যা সারা এবং ছেলে ইব্রাহিম। নয়ের দশকে রোমান্টিক নায়ক হিসেবে নিজের পরিচিতি গড়েছিলেন সইফ। পরে তা ভেঙে ওমকারা, একলব্য থেকে লাল কাপ্তান, তানাজি দ্য আনসাং ওয়ারিয়ারের মতো সিনেমায়। টশন ছবির শুটিংয়ে সময় করিনা কাপুরের প্রেমে পড়েন সইফ। পাঁচ বছরের প্রেম পর্বের পর ২০১২ সালে বিয়ে করেন দু’জন। জন্ম হয় সন্তান তৈমুরের। কিছুদিন আগেই আবার করিনার সন্তানসম্ভবা হওয়ার খবর আসে। নিজের জীবনের এই সমস্ত জানা-অজানা ঘটনাই আত্মজীবনীতে তুলে ধরতে চলেছেন পতৌদির দশম নবাব। ২০২১-এ প্রকাশ্যে আসবে তাঁর লেখা বই। এর আগে বই এর লিখেছেন তাঁর বোন সোহা আলি খান।

- Advertisement -

সইফের আত্মজীবনীর খবর প্রকাশ্যে আসতেই তাঁর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন নেটদুনিয়ার একাংশ। সইফের আত্মজীবনীকে নেপোটিজমের চূড়ান্ত দলিল আখ্যা দিয়েছেন অনেকে। অনেকে আবার কটাক্ষ করে লিখেছেন, সইফের আত্মজীবনী সেই সমস্ত মানুষের কাছে উদাহরণ হতে পারে যাঁরা ক্রমাগত অবসর না নিয়ে বাজে অভিনয় করে যেতে পারেন। সুশান্ত সিং রাজপুত অভিনীত শেষ ছবি দিল বেচারায় ছোট্ট একটি চরিত্রে অভিনয় করেন সইফ।