কোভিড হাসপাতাল থেকে সরল সারি ওয়ার্ড

486

পুরাতন মালদা: করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় পুরাতন মালদার কোভিড-১৯ হাসপাতাল থেকে সরিয়ে ফেলা হল সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ইলনেস বা সারি ওয়ার্ড। ফের মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই সারি রোগীর চিকিৎসা হবে বলে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর। রবিবার থেকেই এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে জানা গিয়েছে।

মালদায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। মে মাসের শুরুতে মাত্র তিনজন আক্রান্তের খবর মিললেও এক সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই সেই সংখ্যাটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩-তে। ভিনরাজ্য ফেরত পরিযায়ী শ্রমিকদের লালার নমুনা পরীক্ষায় একের পর এক সংক্রমণ ধরা পড়ায় উদ্বেগ বাড়ছে স্বাস্থ্য ও প্রশাসনিক কর্তাদের।

- Advertisement -

আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য পুরাতন মালদার গ্লোকাল নার্সিংহোমকে কোভিড-১৯ হাসপাতাল হিসেবে চিহ্নিত করেছিল জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর। সেই মোতাবেক যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ওই হাসপাতালের পরিকাঠামো তৈরির কাজ শেষ করা হয়। তবে এপ্রিলের শেষ অবধি মালদায় তেমনভাবে সংক্রমণের ঘটনা না ঘটায় কোভিড-১৯ হাসপাতালেই সারি রোগীদের চিকিৎসা হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয় স্বাস্থ্য দপ্তর। এই নিয়ে সে সময় জেলাজুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল। যদিও সিদ্ধান্তে অনড় ছিল স্বাস্থ্য দপ্তর। তবে মে মাসের প্রথম সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই জেলার করোনা পরিস্থিতি বদলাতে থাকে। জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৩-তে। এই ১৩ জনের মধ্যে একজন ইতিমধ্যেই শিলিগুড়ি থেকে সুস্থ হয়ে মালদায় ফিরেছেন।

জেলার প্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শিলিগুড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এই মুহূর্তে পুরাতন মালদার কোভিড হাসপাতালে ভর্তি আছেন মোট ১১ জন করোনা আক্রান্ত রোগী। এই অবস্থায় ওই হাসপাতালে সারি রোগীদের চিকিৎসা হলে সংক্রমণের আশঙ্কা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছিল। এমনকি বহু রোগী হাসপাতালে যেতে চাইছিলেন না। অগত্যা কোভিড হাসপাতাল থেকে অবশেষে সারি ওয়ার্ড স্থানান্তরিত করে মালদা মেডিকেল কলেজে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেয় স্বাস্থ্য দপ্তর।

রবিবার থেকেই কোভিড হাসপাতালে সারি ওয়ার্ড বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর। আগামী দিনগুলিতে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লে চাপ বাড়বে কোভিভ হাসপাতালের ওপর। তাই ওই হাসপাতালে সারি ওয়ার্ড খুলে রেখে আর ঝুঁকি নিতে নারাজ স্বাস্থ্যকর্তারা। এদিকে, এদিন ভিনরাজ্য ফেরত ৫০ জন পরিযায়ী শ্রমিক বাসে মালদায় ফেরেন। শহরের গৌড়কন্যা বাস টার্মিনাসে মেডিকেল টিমের উপস্থিতিতে শ্রমিকদের থার্মাল স্ক্রিনিং ও লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়।