গোরু পাচার কাণ্ডে সিবিআই আদালতে হাজির সতীশ কুমার

110

আসানসোল: রাজ্য তথা দেশজুড়ে শোরগোল ফেলে দেওয়া গোরু পাচার মামলায় অন্যতম অভিযুক্ত জামিনে থাকা বিএসএফের কম্যান্ড্যান্ট সতীশ কুমার শুক্রবার আসানসোলে বিশেষ সিবিআই আদালতে হাজিরা দিলেন। তার জামিনের অন্যতম শর্তই যখন তাকে ডাকা হবে, তখন তাকে হাজিরা দিতে হবে। এদিন তিনি সিবিআই আদালতের বিচারক জয়শ্রী বন্দ্যোপাধ্যায়ের এজলাসে হাজির হন। তার আইনজীবী শেখর কুন্ডু বলেন, ‘মামলার পরবর্তী দিন পড়েছে আগামী ১ মার্চ। পাশাপাশি, তার জামিন দেওয়ার সময় তাকে যেসব শর্ত দেওয়া হয়েছিল, বিচারক এদিন সেগুলি তুলে দিয়েছেন৷’

প্রসঙ্গত, গোরু পাচার মামলায় অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া বিএসএফ কমান্ড্যান্ট সতীশ কুমারকে আসানসোলের সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত ২০২০ সালের ২১ ডিসেম্বর শর্তসাপেক্ষে জামিন দিয়েছিল। তবে সেদিন তিনি আসানসোলের বিশেষ সংশোধনাগার থেকে ছাড়া পাননি। কারণ তার জামিনের কাগজ সেদিন সন্ধ্যার মধ্যে আসানসোল বিশেষ সংশোধনগারে এসে পৌঁছোয়নি। পরের দিন ২২ ডিসেম্বর সকালে সংশোধনাগার থেকে সতীশ কুমার ছাড়া পান।

- Advertisement -

সতীশ কুমারের অন্যতম আইনজীবী শেখর কুণ্ডু সেই সময় বলেছিলেন, ‘আদালতে সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে যেসব নথিপত্র জমা দেওয়া হয়েছিল, তাতে সরাসরি তার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। স্বাভাবিকভাবেই সুপ্রিমকোর্টের দুটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায়কে হাতিয়ার করে শুনানির সময়ে তাকে জামিনের জন্য সওয়াল করেছিলেন।‘ সতীশ কুমারের আইনজীবি বিচারককে বলেছিলেন, ‘যেহেতু সতীশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী বা বিএসএফে গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেন স্বাভাবিকভাবেই তার সেখানেই যেমন চাকরিগত দায়বদ্ধতা আছে, তেমনি আদালত যে শর্ত দেবে সেই শর্ত মেনেই তিনি চলবেন। তাকে জামিন দেওয়া হোক।‘ শেষ পর্যন্ত সিবিআই আদালতের বিচারক জয়শ্রী বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে ৫ লক্ষ টাকার বন্ডে জামিন দিয়েছিলেন। এছাড়াও যেদিন তিনি জেল থেকে ছাড়া পাবেন তারপর পরপর সাতদিন সিবিআইয়ের কাছে গিয়ে হাজিরা দিয়ে আসতে হবে। আর সেই হাজিরার রিপোর্ট আদালতকে সাতদিন পরে সিবিআইকে জানাতে বলেছিলেন বিচারক।

উল্লেখ্য, সব মিলিয়ে এই মামলায় সিবিআই হেপাজত ও আসানসোলের জেল মিলিয়ে মোট ৩৪ দিন বন্দি ছিলেন সতীশ কুমার। ২০২০ সালের ১১ ডিসেম্বর তাকে আসানসোলের সিবিআইয়ের আদালত থেকে ১১ দিনের জন্য জেল হেপাজতে পাঠানো হয়েছিল। গত ১৮ নভেম্বর সিবিআই তাকে গ্রেপ্তার করেছিল।

অন্যদিকে, এই মামলায় সিবিআই গত ৮ ফেব্রুয়ারি আসানসোল আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছে। তাতে সতীশ কুমার, এনামুল হক সহ ৭ জনের নাম আছে। এনামুল এখনো আসানসোল জেলে রয়েছে। তার জামিনের জন্য পরবর্তী শুনানির দিন হল আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি।