তালা ভেঙে বিবেকানন্দের মূর্তিতে মাল্যদান সায়নীর

134

আসানসোল: আসানসোল দক্ষিণ বিধান সভার বার্ণপুর এলাকায় মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফায় প্রচারে আসেন তৃণমূল কংগ্রেসের তারকা প্রার্থী সায়নী ঘোষ। শাসক দলের প্রার্থী হিন্দু দেবতাকে অপমান করেছেন তাই তাকে স্বামী বিবেকানন্দের মাল্যদান করতে দেওয়া হবে না বলে বার্ণপুরের কয়েকজন বিজেপি নেতা ও কর্মীরা ঠিক করেছিলেন। যদিও তাদের হাতে কোনও দলীয় পতাকা ছিল না। তাঁরা নিজেদেরকে স্বামী বিবেকানন্দ জন্মোৎসব কমিটির সদস্য বলে জানান। অভিযোগ, প্রচার কর্মসূচিতে গণ্ডগোল হতে পারে এই আশঙ্কায় ওই সব বিজেপি কর্মীদের উপরে মৃদু লাঠিচার্জ করেছে হিরাপুর থানার পুলিশ। যদিও পুলিশ লাঠিচার্জের কথা অস্বীকার করে। পুলিশ জানায়, যারা সেখানে ছিলেন, তাদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। কমিটির সদস্যরা স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তিতে যাতে প্রার্থী মাল্যদান করতে না পারে তারজন্য গেটে তালা মারা হয়। তবে পুলিশ সেই গেটের তালা ভেঙে দেয়।

পুলিশ তালা ভেঙে বার্নপুর টাউনপুজো মোড়ে স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তিতে মালা দিয়ে প্রচার শুরু করেন সায়নী ঘোষ। এরপর বার্নপুর শহরে মিছিল করে সায়নী পৌঁছোন বার্ণপুরের ত্রিবেণী মোড় সংলগ্ন সম্প্রীতি ভবনে। প্রার্থীর সঙ্গে প্রচার মিছিলে ছিলেন পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের চেয়ারম্যান, রাজ্যের মন্ত্রী আসানসোল উত্তর বিধান সভার প্রার্থী মলয় ঘটক, প্রাক্তন বিধায়ক সোহরাব আলি, আসানসোল পুরনিগমের প্রাক্তন মেয়র পারিষদ লক্ষ্মণ ঠাকুর সহ একাধিক বিদায়ী কাউন্সিলররা। তবে দেখা যায়নি রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠ তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের রাজ্য সভাপতি অশোক রুদ্র।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, সায়নী ঘোষ প্রার্থী হওয়ার পরে এই অশোক রুদ্র সরব হয়েছিলেন। সম্প্রীতি হলের সভায় দলের কর্মীদের এক হয়ে লড়াই করার আহ্বান জানান সায়নী ঘোষ। তিনি প্রার্থী হওয়ায় অভিমানি দলের কর্মীদের অনেকেই দেখা যায় এদিনের কর্মসূচিতে। অর্থাৎ প্রাথমিক ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে যে সমর্থ হয়েছেন সায়নী তা বলাই যায়।

দলের রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক ভি শিবদাসন ওরফে দাসু বলেন, ‘যারা এদিন আসেননি, তাদের উপর দল নজর রাখছে। দলনেত্রী যাকে প্রার্থী করেছেন, তাকে সবাইকে সমর্থন করতে হবে।’

এদিকে সায়নী চলে যাওয়ার পর স্বামী বিবেকানন্দর মূর্তি জল দিয়ে পরিষ্কার করেন বিজেপি কর্মীরা। ঘটনার প্রেক্ষিতে সায়নীর জবাব, বিজেপির হাতে কোনও ইস্যু নেই তাই এসব নিয়ে বাজার গরম করতে চাইছে। স্বামী বিবেকানন্দ কারও একার নয়। তিনি সারা বিশ্বের, দেশের ও বাঙালির।