সপ্তম দফা নির্বাচনে আসানসোল-দুর্গাপুরে বিক্ষিপ্ত অশান্তি

67

আসানসোল: প্রথম ৬ ঘন্টায় পশ্চিম বর্ধমান জেলার ৯টি বিধানসভায় প্রায় ৫১ শতাংশ ভোট পড়েছে। এই ৬ ঘন্টায় আসানসোল ও দুর্গাপুরে বিক্ষিপ্তভাবে একাধিক ঘটনা ঘটলেও, বড় কোনও ঘটনা ঘটেনি। এখনও পর্যন্ত একমাত্র পান্ডবেশ্বর বাদে বাকি ৮টি বিধানসভায় ৫০ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। অন্যদিকে, রাজ্য পুলিশের এক এসআইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তিনি আসানসোল দক্ষিণ বিধানসভা তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী সায়নী ঘোষের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে আসানসোল পুরনিগমের ৮০ নম্বর ওয়ার্ডে। অভিযোগ, সায়নী ঘোষকে পুলিশ থামায়।

সোমবার সকালে লাইনে দাঁড়িয়ে কুলটি বিধানসভার চলবলপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৩ নম্বর বুথে পরিবারের সকলকে নিয়ে ভোট দিলেন নন্দীগ্রামের সংযুক্ত মোর্চার সিপিএম প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়। এদিন ভোট দেওয়ার পরে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন তাঁদের দায়িত্ব পালন করতে না পারায় মানুষের মনে আতঙ্ক, ক্ষোভ ও অসন্তোষ রয়েছে। সংযুক্ত মোর্চা এবার সরকার গড়বে।‘ বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেস ছয় দফায় দাবি করছে, যে তারা সরকার করছে। এই দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘তাহলে ভোট বন্ধ করে দিলে সরকারের টাকা বাঁচবে।‘

- Advertisement -

অন্যদিকে, আসানসোল উত্তর বিধানসভার সেটে কন্যাপুরে বিজেপির ক্যাম্পে ঢুকে দুই বিজেপি কর্মীকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। খবর পেয়ে বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণেন্দু মুখোপাধ্যায় সেখানে যান। সেই সময় তাঁকে বুথ থেকে ২০০ মিটারের বাইরে চলে যেতে বলে কেন্দ্রীয় বাহিনী। এদিকে, দূর্গাপুর পূর্ব বিধানসভার মলানদিঘিতে ২১৫ নম্বর বুথ কেন্দ্র থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়। সেখানে তৃণমূলকর্মীরা তাঁদের দলীয় কর্মীদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় আচমকাই কেন্দ্রীয় বাহিনী ও রাজ্য পুলিশ হামলা চালায়। চেয়ার ভেঙ্গে দেওয়ার পাশাপাশি তিনজন দলীয় কর্মীকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপিকর্মীদের কথা মতো চলছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। কাঁকসা থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তৃণমূল প্রার্থী প্রদীপ মজুমদারের অভিযোগ, স্কুলের সামনে তাঁর গাড়ি দাঁড় করানো ছিল। কিন্তু দুর্গাপুর পূর্ব বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপির প্রার্থীর গাড়ি সেখানে আসতেই তাঁর গাড়ি সরিয়ে দেওয়া হয়। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের প্রশ্ন করা হলে তাঁরা কোনও উত্তর দিতে চাননি। পাশাপাশি বিদ্যালয়ের সামনে প্রদীপ মজুমদারকে দেখে বিজেপি প্রার্থী কর্নেল দীপ্তাংশু চৌধুরী সৌজন্যতা দেখান।