ভবন তৈরি, শিক্ষক নেই, চাকুলিয়ায় চালু হচ্ছে না স্কুল

68

মহম্মদ আশরাফুল হক, চাকুলিয়া : ঝাঁ চকচকে ভবন তৈরি হওয়ার দুবছর পরেও চালু হয়নি চাকুলিয়া ব্লকের শকুন্তলায় ইংরেজিমাধ্যম সরকারি মডেল স্কুল। এলাকার ছাত্রছাত্রীদের ইংরেজিমাধ্যম স্কুলে পড়ানোর ইচ্ছা পূরণ করতে হলে ভরসা এখন বিহারের স্কুল। এই স্কুল তৈরি হওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা আশায় ছিলেন, বাড়ির কাছে পড়াতে পারবেন সন্তানদের। কিন্তু সেই আশাপূরণ হয়নি। স্থানীয় বাসিন্দা নীলাম্বরকুমার দাস বলেন, ২০১৬ সালে কিশনগঞ্জে ইংরেজিমাধ্যম স্কুলে যাওয়ার সময় পথ দুর্ঘটনায় চাকুলিয়ার ১২ জন শিশুর মৃত্যু হয়েছিল। সেই ক্ষত আমাদের মনে এখনও দগদগে। সেই সময় চাকুলিয়ার শিক্ষা পরিকাঠামো নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। তার পরে প্রশাসন ২০১৮ সালে এই মডেল স্কুলটি গড়ে তোলে। সেই সময় স্থানীয় নেতারা বলেছিলেন, এলাকার গরিব পরিবারের ছেলেমেয়েরা ইংরেজিমাধ্যম স্কুলে পড়াশোনার সুযোগ পাবে। কাউকে আর বাইরে যেতে হবে না। আরেক বাসিন্দা আবুল কাশেম বলেন, স্কুলের পরিকাঠামো থাকলেও শিক্ষক নেই। দুই বছর ধরে আশাপূরণ না হওয়ায় অভিভাবকরা সন্তানদের অন্য স্কুলে ভর্তি করছেন।

স্কুলটি চালু না হওয়া নিয়ে এখন শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর। চাকুলিয়া বিধানসভা কেন্দ্র এলাকায় বিজেপির সংযোজক শম্ভু মণ্ডল বলেন, শুধু চাকুলিয়ার মডেল স্কুল নয়, গোয়ালপোখরের গতি গ্রাম পঞ্চায়েতের মডেল স্কুলেরও একই অবস্থা। এই সরকারের আমলে নতুন নতুন ভবনের শিলান্যাস হচ্ছে। কিন্তু কাজ কোথাও হচ্ছে না। শকুন্তলার এই মডেল স্কুলটিতে বর্তমানে সন্ধ্যায় দুষ্কৃতীদের আনাগোনা থাকে। একে তৃণমূলের নেতারা উন্নয়ন বলছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের চাকুলিয়া ব্লক কোঅর্ডিনেটর মিনহাজুল আরফিন আজাদ বলেন, বিরোধীরা ভিত্তিহীন অভিযোগ করছে। স্কুল খোলানোর জন্য প্রশাসন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। করোনা পরিস্থিতির জন্য এতদিন স্কুল খোলা সম্ভব হয়নি। রাজ্যের সব স্কুল খুললে মডেল স্কুলটি খুলবে বলে আমরা আশাবাদী। উত্তর দিনাজপুরের জেলা বিদ্যালয় অবর পরিদর্শক (মাধ্যমিক) নিতাইচন্দ্র দাস বলেন, মডেল স্কুলের  ফাইল রেডি করা হয়েছে। শীঘ্রই চালু করার ব্যবস্থা করা হবে।

- Advertisement -