স্কুলের ১০০ গজের মধ্যে তামাক বিক্রি বা সেবন নয়, জলপাইগুড়িতে ব্লু লাইন কর্মসূচি

410

জলপাইগুড়ি : শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১০০ গজের মধ্যে তামাক সেবন এবং বিক্রি রুখতে ব্লু লাইন কর্মসূচি নিল জলপাইগুড়ি জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ১০০ গজ পরিধি নীল রং দিয়ে দাগ দেওযা হবে। এই দাগের ভিতর তামাক সেবন কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। এই নির্দেশিকা কার্যকর করতে চলতি সপ্তাহে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ প্রশাসন এবং বিদ্যালয়গুলিকে নিযে একটি বৈঠক হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে জেলার দশটি স্কুলকে বেছে নিয়ে এই ব্লু লাইন কর্মসূচি শুরু হচ্ছে।

সিগারেট অ্যান্ড আদার টোবাকো প্রোডাক্ট অ্যাক্ট ২০০৩ অনুযাযী কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০০ গজের মধ্যে ধূমপান এবং তামাক সেবন আইনত অপরাধ। এই নির্দেশিকা দীর্ঘ বছর ধরে জারি থাকলেও তা কেবলমাত্র খাতায়কলমেই সীমাবদ্ধ ছিল। দু-একবার শহরের জনবহুল এলাকায প্রকাশ্যে ধূমপান করা এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বাইরে তামাকজাত বিক্রি বন্ধ করার জন্য অভিযান চালিয়েছে প্রশাসন।কিন্তু তার ধারাবাহিকতা ছিল না। শুধু তাই নয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ১০০ গজ কতটা দূরত্ব হবে তাও অনেকের ধারণা নেই বলে দাবী ব্যবসাযীদের একাংশের। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০০ গজের মধ্যে তামাক সেবন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করতে এবার কোমর বেঁধে আসরে নেমেছে প্রশাসন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের থেকে ১০০ গজ কতটা দূর পর্যন্ত মেপে নিয়ে নীল রংয়ের দাগ দেওয়া হবে। সেই নীল রেখার ভিতরে যে সমস্ত দোকান থাকবে তাদের প্রথমে সতর্ক করা হবে। কোনোভাবেই ওই এলাকায় ধূমপান করা যাবে না।

- Advertisement -

জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম পর্যাযে ব্লু লাইন কর্মসূচি পালন করতে জেলার তিনটি পুরসভা এলাকার একটি করে স্কুলকে বেছে নেওয়া হবে। জেলার সাতটি ব্লক থেকেও একটি করে স্কুল বেছে নিয়ে তার চারপাশে ১০০ গজ পর্যন্ত এলাকাজুড়ে নীল দাগ টেনে দেওয়া হবে। কোন স্কুলকে প্রথম পর্যায়ে ব্লু লাইন কর্মসূচীর আওতায আনা হবে তা ঠিক করতে জেলা বিদ্যালয পরিদর্শককে দাযিত্ব দেওযা হয়েছে। মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক জগন্নাথ সরকার বলেন, ব্লু লাইন কর্মসূচি কার্যকর করতে সকলকে নিযে একটি বৈঠক হযেছে। ১০০ গজের সীমানা ধরে নীল রেখা টেনে দেওয়ার পরেও যদি এর ভিতরে কেউ তামাক সেবন বা বিক্রি করেন সেক্ষেত্রে আইন অনুযাযী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ছবি ও তথ্য-সৌরভ দেব