হিন্দুদের কাফের বলে ঘৃণা করতে শেখাচ্ছে পাক স্কুল

0
531
- Advertisement -

রাষ্ট্রসংঘ : বালোচিস্তানের অধিবাসীদের অধিকারের দাবিতে রাষ্ট্রসংঘের এক অনুষ্ঠানে পাক সরকারের কাজকর্ম নিয়ে সমালোচনার ঝড় তুলে বালোচ নেতা মুনির মেংগল বলেন, পাকিস্তানের স্কুলে হিন্দুদের কাফের ও ইহুদিদের ইসলামের শত্রু বলে শেখানো হয়। পাকিস্তানের সেনা স্কুল ক্যাডেট কলেজের প্রাক্তনী মুনির জানিয়েছেন, গুলি ও বোমাকে  শ্রদ্ধা করা শেখানো হয় স্কুলে। হিন্দু মহিলাদের উদ্দেশে সেসব ব্যবহারের শিক্ষা দেন শিক্ষকরা। সব স্কুল, মাদ্রাসায় এখনও এসবই শেখানো হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন বালোচ নেতা। তাঁর অভিযোগ, পাক সরকার ও সেনাবাহিনী বালোচিস্তানে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। পাকিস্তানিদের শিরায় শিরায় হিন্দুবিদ্বেষ সরকারের তরফেই ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে উল্লেখ করে এই বালোচ নেতা জানান, হিন্দু বা ইহুদিদের বিরোধিতা না করলে পাকিস্তানে তাকে রাষ্ট্রদ্রোহী তথা ধর্মদ্রোহী বলে চিহ্নিত করা হয়। এর শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। তাঁর অভিযোগ, পাকিস্তানে স্কুলের পাঠ্যক্রমের একটি অংশই হল হিন্দু বিরোধিতা। ধর্মান্ধ গোষ্ঠী, জঙ্গি সংগঠনগুলি দেশের সম্পদ বলেও পাঠ্যক্রমে উল্লেখ রয়েছে। বালোচ সহ সমস্ত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ে মূল পরিচয় তথা অস্তিত্ব ধারাবাহিকভাবে মুছে ফেলার তৎপরতা ইমরান খান সরকার কীভাবে করছে, তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন মুনির। তাঁর অভিযোগ, স্থানীয় অধিবাসীদের সম্মতি ছাড়াই চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডর (সিপিইসি) রূপায়িত হচ্ছে। ফলে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে স্থানীয়রা উৎখাত হচ্ছেন। বালোচিস্তানের গদর বন্দর সংলগ্ন অঞ্চলে জনসংখ্যা ৮০ হাজার। সিপিইসি প্রকল্প রূপায়িত হলে এই অঞ্চলে অন্ততপক্ষে পাঁচ লক্ষ চিনের নাগরিক বসবাস করবেন।

- Advertisement -