ভাস্কর বাগচী, শিলিগুড়ি : শিলিগুড়ির মতো গুরুত্বপূর্ণ শহরে পানীয় জলের দ্বিতীয় প্রকল্প তৈরি না হওয়ার পিছনে রাজনীতিকেই দায়ী করছেন সকলে। বারবার আশ্বাস দেওয়া সত্ত্বেও শিলিগুড়ির জন্য পানীয় জলের দ্বিতীয় প্রকল্প তৈরি হয়নি। এরমধ্যে ওই দপ্তরের মন্ত্রীও বদল হয়েছে দুবার। শিলিগুড়ি পুরনিগম থেকে রাজ্য সরকারের কাছে শহরে পানীয় জলের দ্বিতীয় প্রকল্পটির জন্য দরবারও করা হয়েছে বহুবার। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এর ফলে পানীয় জলের সমস্যায় শহরের মানুষের ভোগান্তি বাড়লেও মেনে নেওয়া ছাড়া তাঁদের আর কিছু করার নেই। মেয়র অশোক ভট্টাচার্য বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকবার জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তরে গিয়ে দরবার করে এসে আশার কথা শোনালেও বাস্তব পরিস্থিতি হল, এখনও পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রকল্পের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্তই হয়নি।

রাজ্যে তণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর প্রথম জনস্বাস্থ্য কারিগরিমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় শিলিগুড়িতে এসে একবার শহরের মানুষের পানীয় জলের সমস্যা মেটাতে ৩০০ কোটি টাকার দ্বিতীয় জলপ্রকল্পের কথা ঘোষণা করেন। সেই সময় পুরনিগমে ক্ষমতায় ছিল কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের বোর্ড। কিন্তু পরে মন্ত্রী আর ওই প্রকল্প নিয়ে কোনো কথা বলেননি। এর মধ্যে সুব্রতবাবুর হাত থেকে ওই দপ্তর যায় মলয় ঘটকের হাতে। তাঁর কাছে দরবার করেন মেয়র অশোক ভট্টাচার্য। তিনিও প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন শিলিগুড়ির পানীয় জলপ্রকল্প নিয়ে কিন্তু তাঁর দপ্তর বদলে যায় কয়েক মাসের মধ্যেই। জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তর এখন সৌমেন মহাপাত্রর হাতে। কিন্তু শিলিগুড়ির দ্বিতীয় জলপ্রকল্প নিয়ে শুধুই প্রতিশ্রুতি মিলেছে।

শুধু তৃণমূল কংগ্রেসের আমলেই নয়, ২০১১-র আগে শিলিগুড়ির পানীয় জলের সমস্যা মেটাতে দ্বিতীয় প্রকল্প তৈরির ব্যাপারে সেভাবে উদ্যোগী হয়নি বামেরাও, যার ফল এখনও ভোগ করতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এ ব্যাপারে অশোক ভট্টাচার্য বলেন, তিন মন্ত্রীর কাছে গিয়ে শিলিগুড়ির দ্বিতীয় জলপ্রকল্প নিয়ে কথা বলেছি। এমনকি কেন্দ্রের অম্রুত প্রকল্পেও শিলিগুড়িকে ঢোকানো হয়নি। আমি পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে ফের বলেছি,যাতে শিলিগুড়িকে আম্রুত প্রকল্পে ঢোকানো হয়। তাতে দ্বিতীয় জলপ্রকল্প তৈরি করা যাবে। মন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন আগামী ১৪ তারিখ বিষয়টি নিয়ে তিনি কথা বলবেন। অন্যদিকে, পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, ফুলবাড়িতে য়খন জলপ্রকল্পটি তৈরি হয়েছিল, আমরা সেইসময় বহুবার বলেছিলাম ওটার ডিজাইন ঠিক নেই। জোড়াতালি দিয়ে কাজ হয়েছে। আন্ডারগ্রাউন্ড রিজার্ভার না থাকায় সমস্যা হচ্ছে। তবে এখন নতুন করে আমাদের ভাবতে হবে। আমি পুরো বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজখবর নিচ্ছি।