শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের আমলেই খাদ্যে কালোবাজারি! বিজেপিকে তোপ সেলিমের

259

কলকাতা: বিজেপি শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে মাতামাতি করে। কিন্তু তিনি দেশের খাদ্যমন্ত্রী থাকাকালীন খাদ্য নিয়ে কালোবাজারির কথা জনসমক্ষে আনতে চায় না বিজেপি। মঙ্গলবার কলকাতার রানী রাসমণি অ্যাভিনিউয়ে অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে এভাবেই বিজেপিকে তোপ দাগলেন সিপিএমের পলিটব্যুরোর সদস্য মহম্মদ সেলিম। তিনি আরও বলেন, ‘এতদিন কৃষকদের সমস্যা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বা মুখ্যমন্ত্রীর কোনও উচ্চবাচ্য ছিল না। সামনে নির্বাচন, সেই কারণেই প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষকদের জন্য তরজা শুরু করে দিয়েছেন। শুধু তাই নয়, কিছু না করেও তাঁরা কৃষকের জন্য কী করেছেন, তার ফিরিস্তি জনসমক্ষে তুলে ধরেছেন। যা অনৈতিক।’

কৃষক আন্দোলনের সমর্থন সহ একাধিক দাবিকে সামনে রেখে ১৬টি বাম দল ও কংগ্রেসের তরফে আয়োজিত অবস্থান-বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এদিন বক্তারা কড়া সুরে রাজ্য ও কেন্দ্রকে আক্রমণ শানান। বাম শরিক দলের নেতারা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পিডিএসের সমীর পুততুন্ড, সিপিআই (এমএল) লিবারেশনের কার্তিক পাল, বিধানসভার কংগ্রেসের তথা বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান, কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ চক্রবর্তী, আশুতোষ চট্টোপাধ্যায়, ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতি সৌরভ প্রসাদ সহ অন্যরা।

- Advertisement -

এদিন বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু বলেন, ‘প্রচন্ড ঠান্ডার মধ্যে ৩৩ দিন ধরে অবস্থান বিক্ষোভে বসে আছেন কৃষকরা। শুধু তাই নয় ৩৩ দিনের মাথাতেই মারা গিয়েছেন ৩৩ জন কৃষক। তাঁদের জন্য কেন্দ্র বা রাজ্য সরকারের কোনও মাথাব্যথা নেই। কৃষক ও সাধারণ মানুষকে বাঁচতে হলে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।’ যদিও এদিন তিনি স্বীকার করে নেন যে, কৃষক আন্দোলনের জেরে কেন্দ্রীয় সরকারকে মাথানত করতে হয়েছে। তাই সরকার আজ কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসার প্রস্তাব দিয়েছে। আর এটাই কৃষকদের নৈতিক জয় বলে মনে করেন তিনি।