নয়াদিল্লি, ২০ এপ্রিলঃ প্রশ্নের মুখে দেশের বিচারব্যবস্থা। সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ করলেন সুপ্রিমকোর্টেরই এক প্রাক্তন মহিলা আধিকারিক। শীর্ষ আদালতের ২২ জন বিচারপতিকে পাঠানো একটি এফিডেফিটে বছর পয়ঁত্রিশের ওই মহিলা দাবি করেছেন, তিনি সুপ্রিমকোর্টের জুনিয়র কোর্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে কর্মরত ছিলেন। গত বছরের ১০ ও ১১ অক্টোবর বিচারপতি গগৈ তাঁকে যৌন হেনস্তা করেন। ওই মহিলার অভিযোগ, অফিসের ভিতর বিচারপতি তাঁকে জড়িয়ে ধরে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ স্পর্শ করতে শুরু করেন। ওই  মহিলা ছাড়ানোর চেষ্টা করেও পারেননি বলে দাবি। এরপর ২২ অক্টোবর ওই মহিলাকে তাঁর চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়।

যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রধান বিচারপতি। ই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বলেন, ‘দেশের বিচারব্যবস্থা সংকটে রয়েছে। আমাকে বলির পাঁঠা করা হচ্ছে।’এই বিষয়ে শনিবার প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চে শুনানি চলে। এই মামলার রায় বিচারপতি অরুণ মিশ্র দেবেন বলে জানিয়েছেন রঞ্জন গগৈ। ২০ বছরের সততার সঙ্গে কাজ করার পর তাঁকে এমন অভিযোগের মুখে পড়তে হবে তা ভাবতে পারেননি বলেও আক্ষেপ প্রকাশ করেন তিনি। তাঁর পিওনের কাছেও তাঁর থেকে বেশি সম্পত্তি রয়েছে বলে এদিন মনে করিয়ে দেন প্রধান বিচারপতি।প্র ধান বিচারপতির অভিযোগ, আগামী সপ্তাহে তাঁর বেঞ্চে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার শুনানি রয়েছে, সেই মামলা প্রভাবিত করতেই তাঁর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে এরপরেও তাঁর কাজে যে কোনও গাফিলতি হবে না, তাও স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। সুপ্রিমকোর্টের সেক্রেটারি জেনারেলের পাঠানো এক ই-মেলে বলা হয়েছে, অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই। আরও বলা হয়েছে, কোনো অশুভ শক্তি এর পিছনে রয়েছে।