পাঠ্য বইয়ের বাইরে গিয়ে সমাজকে মানবিকতার পাঠ দিলেন শিক্ষারত্ন প্রাপ্ত শিক্ষক

210

ফাঁসিদেওয়া, ২৮ সেপ্টেম্বরঃ পুথিগত শিক্ষার বাইরে গিয়ে সমাজের জন্য পাঠ দিলেন শিক্ষক। শিলিগুড়ি মহকুমার ফাঁসিদেওয়া ব্লকের মুরালীগঞ্জ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক তথা সদ্য শিক্ষারত্ন প্রাপক সামসুল আলমের সমাজসেবার কায়দা দেখে অভিজ্ঞ মহলে প্রশংসার ঝড় উঠেছে। স্কুলের নাম ইতিমধ্যেই জেলা ছাড়িয়ে রাজ্য এবং দেশের প্রায় প্রতিটি কোণে পৌঁছে গিয়েছে। আর সেই ক্ষেত্রে সামসুল বাবুর ভূমিকা যে অনস্বীকার্য তা বলার অপেক্ষা রাখে না। স্কুলের পঠন-পাঠনের উন্নতির গন্ডি ছাড়িয়ে তাঁর শিক্ষাদানের ভূমিকা সমাজের ক্ষেত্রেও অনন্য পথ প্রদর্শক হয়ে উঠেছে। শিক্ষারত্নের জন্য মনোনীত হওয়ার পর চলতি মাসের ৫ সেপ্টেম্বর সামসুল বাবু উত্তরকন্য থেকে শিক্ষারত্ন পুরস্কার পেয়েছিলেন। শিক্ষারত্নের অ্যাওয়ার্ড মানি ২৫ হাজার টাকাও পেয়েছিলেন। আর সেই টাকাই গরীবদের মধ্যে বিতরণ করে দিলেন একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাত দিয়ে। সোমবার ভীমবার দৃষ্টিহীন বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে নানান সামগ্রী তুলে দিলেন। একইসঙ্গে ব্লকের ঘোষপুকুর এলাকায় কৃষক পরিবারের ছেলে মেয়েদের আসছে পুজোর উপহার হিসেবে নতুন বস্ত্র তুলে দিয়েছেন। এতে খরচ হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। বাকি ১০ হাজার টাকাও নিজের কাছে না রেখে, সেই টাকাটি তুলে এক গরীব প্রাক্তণ ছাত্রের চিকিৎসার জন্য দান করবেন বলে শিক্ষারত্ন সামসুল আলম জানিয়েছেন। তিনি আরও জানান, মানুষ হয়ে সামর্থ্য থাকলে মানুষের পাশে দাঁড়ানোটা একটা দায়িত্ব। সেই দায়িত্বই পালন করার চেষ্টা করেছি। পুরস্কার মূল্য গরীব মানুষের কাজে দান করতে পেরে ভালো লাগছে৷ এই মহৎ কাজের জন্য বিধাননগর ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষ থেকে এদিন শিক্ষককে সন্মানিত করা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার পক্ষে বাপন দাস জানান, শিক্ষকের মানবিক কাজ আমাদের সমাজকে মানবিকতার পাঠ দিল। ফাঁসিদেওয়ার বিডিও সঞ্জু গুহ মজুমদারও শিক্ষকের এই কাজের ভূয়সী প্রশংসা করছেন।