হরিরামপুরে শুটআউট, জখম ১

163
ছবি: প্রতীকী

হরিরামপুর ও গঙ্গারামপুর: বকেয়া টাকা আদায়কে কেন্দ্র করে শুটআউটের ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে চাঞ্চল্য ছড়াল হরিরামপুরে। শুটআউটে গুরুতর জখম হয়েছেন কমল রাজবংশী (৫৯) নামে এক ব্যক্তি, তাঁর বাড়ি বৈরহাট্টা গ্রাম পঞ্চায়েতের রায়নগর গ্রামে। পরিবারের সদস্যরা তাঁকে গঙ্গারামপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। সেখানেই তাঁর চিকিৎসা চলছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছে হরিরামপুর থানার পুলিশ। কমলবাবুর স্ত্রী প্রতিমা রাজবংশীর অভিযোগ, দুখু নামে গ্রামেরই এক ব্যক্তি গুলি চালিয়েছে। এছাড়া ঘটনায় নাম জড়িয়েছে ঝাড়খণ্ডের এক ব্যক্তির। মূলত তার সঙ্গে কমলবাবুর জামাই কমল শিকদারের বকেয়া টাকা আদায় নিয়ে বচসা হয়। যা শেষে শুটআউটে গড়ায়। ঘটনার জেরে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ঝাড়খণ্ডের বাসিন্দা এক ব্যক্তি এদিন সকালে বংশীহারী থানা এলাকার ধুমসাদিঘি গ্রামে কমল শিকদারের বাড়িতে আসে। কমল বেশ কিছুদিন ধরে স্ত্রীকে নিয়ে রায়নগর গ্রামে শ্বশুর কমল রাজবংশীর বাড়িতে থাকছেন। তা জেনে ঝাড়খণ্ডের ওই ব্যক্তি রায়নগর গ্রামে চলে আসে। সে কমল শিকদারের কাছে টাকা পায় বলে দাবি করে। বিষয়টি নিয়ে রাতে গ্রামে সালিশি সভা ডাকা হয়। যদিও সেই সালিশি সভায় যাননি কমল রাজবংশী ও তাঁর জামাই কমল শিকদার (৩৬)। এরপর ওই ব্যক্তি গ্রামের আরও কয়েকজনকে নিয়ে কমল রাজবংশীর বাড়িতে চড়াও হয়। সেখানে কমল শিকদারকে লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয় বলে অভিযোগ। কমলকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর জখম হন শ্বশুর কমল রাজবংশী। তাঁর চোয়ালে গুলি লেগেছে। তাঁকে গঙ্গারামপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, সালিশি সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় এক গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যার স্বামী। যদিও তাঁর নাম বলতে পারেননি জখমের স্ত্রী প্রতিমা রাজবংশী। অন্যদিকে, কমল শিকদার বলেন, ‘আমার কাছে কোনও টাকা ঝাড়খণ্ডের ওই ব্যক্তি পাবে না।’ উলটে তাঁর দাবি, তিনিই টাকা পাবেন। বৈরহাট্টা গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রাজ্জাক আলি বলেন, ‘সালিশি সভায় গুলি চলেছে। কমল রাজবংশী নামে এক ব্যক্তি আহত হয়েছেন বলে শুনেছি। তবে প্রকৃত ঘটনা কী, তা জানি না।’ গঙ্গারামপুরের এসডিপিও দীপকুমার দাস জানিয়েছেন, গুলি চলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। তদন্ত চলছে।