ছকভাঙা ছায়াছবিতে দিশারি দিনহাটা

378

প্রসেনজিৎ সাহা, দিনহাটা : চিকিত্সা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কি তৈরি হতে পারে শর্ট ফিল্ম? অনেকের ধারণায় না থাকলেও এ নিয়ে একটি মনোগ্রাহী শর্ট ফিল্ম তৈরি করেছেন দিনহাটার ডাঃ উজ্জ্বল আচার্য। আবার একই শহরের শিবম চক্রবর্তী অল্প খরচে স্থানীয় লোকেশনেই একের পর এক সুন্দর শর্ট ফিল্ম তৈরি করেছেন। নিজের তৈরি শর্ট ফিল্মের জন্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়ে দিনহাটার নাম উজ্জ্বল করেছেন অলোক সাহা। এভাবেই শর্ট ফিল্মের জগতে নতুন উচ্চতায় পৌঁছে যাচ্ছে দিনহাটা।

সাধারণ মানুষের মধ্যে এতদিন একটা বদ্ধমূল ধারণা ছিল যে, সিনেমা তৈরি মানেই অনেক টাকার ব্যাপার। অভিনেতা-অভিনেত্রীদের খরচ, শুটিং- সব মিলিয়ে যে টাকা দরকার হয়, তা সাধারণের ধরাছোঁয়ার বাইরে। তেমনি সেই সিনেমা দেখানো সম্ভব শুধু সিনেমাহল বা টিভিতেই। ডিজিটাল যুগে এই ধারণা ভেঙে দিয়েছে শর্ট ফিল্ম। আর এই ছকভাঙা সিনেমা তৈরি করতে এগিয়ে এসেছেন তরুণ প্রজন্মের কয়েকজন স্বল্প দৈঘের্যর সিনেমা নির্মাতা। এই কঠিন কাজে কখনো-কখনো ব্যর্থ হলেও সাফল্যের মুখ দেখছেন অনেক সময়ই। সেই সঙ্গে ভালো কাজের জন্য মিলেছে পরিচিতি, এমনকি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও। এভাবেই শর্ট ফিল্মের চর্চায় এগিয়ে চলেছে দিনহাটা।

- Advertisement -

আর এই কাজে দিনহাটার শর্ট ফিল্ম নির্মাতারা কোনও বড় স্টুডিও বা নামীদামি শিল্পীর ভরসা করেননি। দেশবিদেশের নামী টুরিস্ট স্পটে শুটিংও করেননি। এক্ষেত্রে তাঁরা স্থানীয় শিল্পী ও স্থানীয় লোকেশনকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক তাকলাগানো স্বল্প দৈর্ঘ্যের সিনেমা তৈরি করে ফেলেছেন। আর তাঁদের তৈরি এই স্বল্পদৈর্ঘ্যের সিনেমা ব্যস্ত জীবনে এক ভিন্ন স্বাদ এনে দিচ্ছে।

দিনহাটা শহরের এরকমই একজন পরিচিত স্বল্প দৈর্ঘের সিনেমা নির্মাতা হলেন অলোক সাহা। বর্তমান অনলাইন প্ল্যাটফর্ম থেকে শুরু করে অফলাইন প্ল্যাটফর্ম- সর্বত্রই তাঁর স্বল্প দৈর্ঘের সিনেমার একটা আলাদা চাহিদা রয়েছে। অলোকবাবুর তৈরি শর্ট ফিল্ম কলকাতা মাইক্রো ফিল্ম ফেস্টিভাল, স্ক্রিন শর্ট ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভাল, আন্নাকোটি ফিল্ম ফেস্টিভাল, পুনের ফ্রেমস ইন্টারন্যাশনাল  ফিল্ম ফেস্টিভাল সহ বিভিন্ন চলচ্চিত্র উত্সবে দেখানো হয়েছে। অলোকবাবু ইতিমধ্যে সাতটিরও বেশি স্বল্প দৈর্ঘ্যের সিনেমা তৈরি করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে শিক্ষা, ইচ্ছে, গে গল্প, দুর্গার মতো শর্ট ফিল্ম। তাঁর তৈরি বেশিরভাগ সিনেমাই সমাজের জন্য বিশেষ কিছু বার্তা বহন করে থাকে।

স্বল্প দৈর্ঘ্যের সিনেমা জগতের এরকমই আরেক দিশারি হলেন শিবম চক্রবর্তী। অল্প খরচে, স্থানীয় লোকেশনকে কাজে লাগিয়ে যে সিনেমা তৈরি সম্ভব তার অন্যতম উদাহরণ শিবমের তৈরি করা বিভিন্ন শর্ট ফিল্ম। তাঁর শর্ট ফিল্ম অফলাইনের পাশাপাশি অনলাইন প্ল্যাটফর্মেও প্রশংসা কুড়িয়েছে। শিবম চক্রবর্তীর শর্ট ফিল্ম অলীক, পরিণয়, প্ল্যানচেট, লক্ড, নেমেসিস কোচবিহার ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, ফালাকাটা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শিত হয়েছে। তবে দিনহাটায় শর্ট ফিল্ম তৈরিতে যিনি নতুন জাগরণ এনেছিলেন তিনি হলেন উজ্জ্বল আচার্য। চিকিত্সা সংক্রান্ত বিষয় ধরেও যে স্বল্প দৈর্ঘ্যের সিনেমার কাহিনী হতে পারে- তা উজ্জ্বলবাবুই প্রথম দেখিয়েছেন। তাঁর তৈরি বেশ কয়েকটি শর্ট ফিল্ম দর্শক মনে আজও দাগ কাটে। তার মধ্যে অন্যতম হল মিসড কল, উপকার, আবর্তন, সে আসছে, সম্পর্ক, উপলব্ধি প্রভৃতি। সেগুলি অনলাইন দর্শককুলের কাছে প্রশংসিত। দিনহাটার এই সমস্ত শর্ট ফিল্মের হাত ধরে নবীন প্রজন্মের শিল্পী থেকে গায়করা নিজেদের প্রতিষ্ঠা করার সুযোগ পাচ্ছেন।

দিনহাটার এই প্রতিভাবান নির্মাতারা আগামী প্রজন্মকে যেন এই বার্তা দিতে চাইছেন। অর্থ নয়, শিল্পকুশলতা ও প্রতিভা থাকলে দর্শক হৃদয় সহজেই জয় করা যায়। এই ঐতিহ্য টেনে নিয়ে যাবে নবীন প্রজন্ম- এই আশা রাখছেন তাঁরা।