গ্যাসের দাম কমায় বিপাকে গ্রাহকরা

406

সানি সরকার, শিলিগুড়ি : রান্নার গ্যাসের দাম কমায় বিপাকে পড়েছেন গ্রাহকরা! আশ্চর্যজনক মনে হলেও এটাই বাস্তব। দাম কমে যাওয়ায় কিছু ডিস্ট্রিবিউটার জুন মাসে প্রয়োজনের তুলনায় সিলিন্ডার কম নেওয়ার ফলে চলতি মাসে হেঁশেলে রান্নার গ্যাসের জোগান পেতে হিমসিম খেতে হচ্ছে গৃহস্থদের। যদিও একাধিক ডিস্ট্রিবিউটারের বক্তব্য, বৃষ্টির জেরে চাহিদা বেড়ে যাওয়া এবং কয়েকটি এলাকায় রাস্তা বেহাল হয়ে পড়ায় গাড়ি চলাচলে সমস্যার জেরে বর্তমান সংকটের সৃষ্টি হয়েছে। যদিও এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন ইন্ডিয়ান অয়ে কর্পোরেশনের কর্তারা। তাঁদের বক্তব্য, দাম কমে যাওয়ায় স্টক ক্লিয়ারেন্সের জন্য অনেকেই সময়মতো সিলিন্ডার না নেওয়ায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

কখনও যুক্তি দেওয়া হচ্ছে বর্ষার জন্য সিলিন্ডার পাওয়া যাচ্ছে না, কোনো সময় আবার গাড়ি না পাওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এর জেরে কিছুদিন ধরে শিলিগুড়িতে সময়মতো রান্নার গ্যাস পাওয়ার ক্ষেত্রে চরম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে গ্রাহকদের। ভিতরের খবর, এর মূলেই রয়েছে রান্নার গ্যাসের দাম কমে যাওয়া। আইওসি সূত্রে জানা গিয়েছে, গত মাসে রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার প্রতি দাম ছিল ৭৮৫ টাকা। কিন্তু চলতি মাসে তা ১০১ টাকা কমে দাঁড়ায় ৬৮৪ টাকা। আরও দাম কমতে পারে, এই অনুমানে অনেক ডিস্ট্রিবিউটার প্রয়োজনীয় সিলিন্ডারের জন্য প্ল্যান্টে টাকা জমা দেননি বলে জানা গিয়েছে। যেহেতু পুরোনো বুকিংয়ে চালান কাটা হয়ে গিয়েছে, ফলে পুরোনো দামেই সিলিন্ডার সরবরাহ করে তাঁরা গোডাউনে স্টক খালি করতে চাইছেন।

- Advertisement -

পাশাপাশি, যেহেতু নির্দিষ্ট সময়ে তাঁরা টাকা জমা দেননি ফলে নতুন করে চলতি মাসে সিলিন্ডার পাচ্ছেন না। এর জন্য চাহিদা এবং জোগানের মধ্যে বিস্তর পার্থক্য দেখা দিয়েছে। য়দিও নর্থবেঙ্গল এলপিজি ডিস্ট্রিবিউটার অ্যাসোসিয়েনের সম্পাদক কৌশিক সরকারের দাবি, বৃষ্টির জন্য চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এহেন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকটি জায়গায় রাস্তাও খারাপ হয়ে পড়েছে। তবে এই দাবি উড়িয়ে আইওসি প্ল্যান্টের এক পদস্থ আধিকারিক বলেন, দাম কমার জন্যই কিছু ডিস্ট্রিবিউটার টাকা জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় সিলিন্ডার নেননি। ফলে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। তবে ছোটো অনেক ডিস্ট্রিবিউটারের দাবি, গাড়ির সমস্যায় জন্য তাঁরা সময়মতো সিলিন্ডার পাচ্ছেন না। জানা গিয়েছে, একটি পরিবহণ সংস্থার সঙ্গে গাড়ির চুক্তি বাতিল করেছে আইওসি। পরিবর্তে ডিস্ট্রিবিউটারদের গাড়ি দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। বড়ো ডিস্ট্রিবিউটাররা গাড়ির জোগান দিয়ে সময়মতো সিলিন্ডার পেলেও, এই ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে ছোটো ডিস্ট্রিবিউটারদের। তাঁদের সিলিন্ডার পাওয়ার ক্ষেত্রে চালকরা বাড়তি টাকার দাবি করে থাকেন বলে অভিযোগ। কিন্তু আইওসি নির্দিষ্ট অঙ্কের বাইরে টাকা না দেওয়ায় ছোটো ডিস্ট্রিবিউটারদের গোডাউনে সিলিন্ডার সময়মতো পৌঁছায় না বলে অভিযোগ।               এই সমস্যা নিয়ে কয়েদিন আগেই বৈঠকে বসেন নর্থবেঙ্গল এলপিজি ডিস্ট্রিবিউটার অ্যাসোসিয়েনের কর্তারা। সংগঠনের সম্পাদক কৌশিক সরকারের বক্তব্য, ওই বৈঠকেই সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়ে গিয়েছে। তবে অনেক ডিস্ট্রিবিউটারের বক্তব্য, কোনো সমস্যার সমাধান হয়নি। পঙ্কজপাণি সাহার মতো অনেক ডিস্ট্রিবিউটার বলেন, সময়মতো সিলিন্ডার পাচ্ছি না। গ্রাহকদের কৈফিয়ত দিতে হচ্ছে। কী কারণে এমনটা হচ্ছে, স্পষ্ট নয়।