বেনেগালের বঙ্গবন্ধু-র প্রস্তুতি জোর কদমে 

124

মুম্বই : নিস্তব্ধ রাত। ঘরের ভিতরে আলো জ্বলছে। টেবিলে খাবার দেওয়া হয়েছে। বাড়ির কর্তার বিষণ্ণ মুখ। তিনি খাবার মুখে তুলছেন না। ব্যথাতুর মনে শুধু তাকিয়ে আছেন। তাঁর মনে পড়ে যাচ্ছে, বাংলার মন্বন্তরের কথা। না, এ কোনও গল্পকথা নয়। এ এক ইতিহাস। সেই ইতিহাসের প্রতিফলন এবার বায়োপিক বঙ্গবন্ধু-তে। ঢাকার ৩২ নম্বর ধানমণ্ডির বাড়ির অনুকরণে খাস মুম্বইয়ে সেট গড়ে তোলা হয়েছে। হ্যাঁ,  বঙ্গবন্ধু মুজিবর রহমানের বাড়ির অনুকরণে গড়া সেট। মুজিবকে নিয়ে সম্পূর্ণ বাংলায় এই বায়োপিক পরিচালনা করছেন পরিচালক শ্যাম বেনেগাল।

মুম্বইয়ে এমন সেট যিনি বানিয়েছেন তিনি বাড়তি প্রশংসার দাবি রাখেন। মুজিবর রহমান এমন একটি নাম, যে নামের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতও। তাঁর শতবর্ষের সঙ্গে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপিত হচ্ছে। তাতে সমানভাবে তৎপর ভারতও। ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের স্বর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে ঢাকায় যাওয়ার কথা আছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। এই উপলক্ষ্যে বায়োপিকের কাজ দ্রুত করার তাড়া পরে গিয়েছে।

- Advertisement -

ভারত-বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনায় তৈরি হচ্ছে বঙ্গবন্ধু বায়োপিক। কোভিড সুরক্ষাবিধি মেনে মুম্বইয়ে স্টুডিওয় জোরকদমে শুটিং শুরু হয়েছে ২১ জানুয়ারি থেকে। বঙ্গবন্ধুর ভূমিকায় অভিনয় করছেন বাংলাদেশের  অভিনেতা আরফিন শুভ। মুজিব জায়া ফাজিলাতুন্নেসার ভূমিকায় নুসরত ইমরোজ তিসা। অভিনেতা আরফিনের মুখে মুজিবের মুখের বিভিন্ন অভিব্যক্তি ফুটে উঠেছে। অভিনয় কতটা নিখুঁত হচ্ছে, ক্যামেরায় চোখ রেখে তা পর্যবেক্ষণে ব্যস্ত শ্যাম বেনেগাল। পরিচালকের বয়স এখন ৮৬। কিন্তু তাঁর প্রাণচাঞ্চল্য দেখে কে বলবে তিনি অশীতিপর। শাম বেনেগাল জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধুর কালানুক্রমিক জীবন তাঁর ছবিতে দেখানো হচ্ছে না। তাঁর জীবনের নির্দিষ্ট মোড়, যা তাঁর জীবনকে ভীষণভাবে স্পর্শ করেছিল, সেগুলি থাকবে ছবিতে।

শুধু জননেতার ভূমিকা নয়, মুজিবের ব্যক্তিজীবনের কিছু ঝলকও থাকবে বায়োপিকে। ছবির বেশিরভাগ অভিনেতা, অভিনেত্রী বাংলাদেশের। শ্যাম জায়েদি ও অতুল তিওয়ারির লেখা মূল কাহিনীটি ইংরেজিতে। ভাব, ব্যাঞ্জনা ও আবহের প্রেক্ষিতটি রেখে তা বাংলায় রূপান্তরিত করা হয়েছে। কথোপকথনে ব্যবহৃত হয়েছে বাংলা বাগধারা। বাংলাদেশ ফিলম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন ও ন্যাশনাল ফিল্ম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশনের যৌথ উদ্যোগে গড়ে ওঠা এই ছবির অপেক্ষায় শুধু ওপার বাংলার মানুষ নন, বসে আছে এপার বাংলাও।