সর্ষের তেলে করোনা পালাবে, শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটান পুলিশের টোটকা

411

শিলিগুড়ি : বাংলায় প্রবাদ রয়েে নাকে সর্ষের তেল দিলে নাকি ঘুম ভালো হয়। কিন্তু শিলিগুড়ির পুলিশকর্তার মতে, নাকে সর্ষের তেল দিলে নাকি করোনা পালায়। নিয়ম করে সর্ষের তেল দিলে, কাঁচা সর্ষের তেল খেলে করোনার উপসর্গ উপশম হয়। তাই বুধবার মাস্ক, স্যানিটাইজারের সঙ্গে সর্ষের তেলও বিলি করল শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটান পুলিশ। কমিশনারেটের ফেসবুক পেজেও বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। পুলিশ কমিশনারের নির্দেশেই এমন করা হচ্ছে বলে দাবি পুলিশের। বিষয়টিকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। কীসের ভিত্তিতে পুলিশ সর্ষের তেল নিয়ে এই প্রচার করছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে বিভিন্ন সংগঠন। পুলিশের এই দাবির কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। অবিলম্বে বিষয়টি নিয়ে পুলিশকে প্রচার বন্ধ করার জন্য জেলা শাসককে নির্দেশ দিয়েছেন করোনা মোকাবিলায় উত্তরবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক (ওএসডি) ডাঃ সুশান্ত রায়। তিনি বলেন, জেলা শাসকের সঙ্গে কথা হয়েছে। এসবের কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। অবিলম্বে পুলিশকে এর প্রচার বন্ধ করতে বলা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চেস্ট মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডাঃ ইন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, আমি বিষয়টি শুনেছি। কয়েকজন পুলিশকর্মী আমাকে বিষয়টি বলেছেন। কিন্তু এর কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। আমি আমার রোগীদের এই টোটকা প্রেসক্রাইব করব না, আবার কেউ যদি চান তাঁকে মানা করব না। অ্যাডিশনাল ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) যশপ্রীত সিং বলেন, পুলিশ কমিশনারের নির্দেশে আমরা স্যানিটাইজারের পাশাপাশি সর্ষের তেল বিলি করেছি। সর্ষের তেল দিয়ে একটা চিকিৎসা রয়েছে। অনেকেই এতে সুস্থ হয়েছেন।

সোমবার শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটান পুলিশের ফেসবুক পেজে একটি পোস্ট করা হয়। সেখানে করোনা চিকিৎসায় কিছু টোটকার কথা বলা হয়। ওই পোস্টে দাবি করা হয় পুরোটাই প্রমাণিত। সেখানে সর্ষের তেল নাকে দেওয়া, সর্ষের তেল দিয়ে মুড়ি খাওয়া সহ একাধিক টোটকার কথা বলা হয়েছে। উদাহরণ হিসেবে শিলিগুড়ি পুলিশ কমিশনারেট করোনা সংক্রামিত কনস্টেবল, ডেপুটি পুলিশ কমিশনারের আত্মীয় এবং সিআইডির উত্তরবঙ্গের স্পেশাল সুপারিন্টেন্ডেন্টের উদাহরণ তুলে ধরা হয়েছে। পুলিশের দাবি, এই টোটকায় তাঁরা সুস্থ হয়েছেন।

- Advertisement -

বুধবার ভক্তিনগর ট্রাফিক গার্ডের অফিস থেকে শিলিগুড়ি পুলিশ মাস্ক ও স্যানিটাইজারের পাশাপাশি সর্ষের তেল বিলি করে। গোটা বিষয়টিকে কেন্দ্র করে বিতর্ক শুরু হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি না থাকা সত্ত্বেও পুলিশ বিষয়টি এভাবে কেন প্রচার করল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্যাথলজি বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসার ডাঃ কল্যাণ খান বলেন, পুলিশ কমিশনার বৈজ্ঞানিক ভিত্তি দিয়ে বলুন।