বিতর্কিত গ্রেটার নেতার সঙ্গে তৃণমূল বিধায়কের সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা

252

পার্থসারথি রায়, সিতাই: বিতর্কিত গ্রেটার নেতা অনন্ত রায় মহারাজের সঙ্গে দেখা করলেন সিতাইয়ের তৃণমূল বিধায়ক জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া। আর এই সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। বিজেপি ঘনিষ্ঠ এই রাজবংশী নেতা এবার তৃমমূলের দিকে ঝুঁকছেন কি না, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। যদিও এটি একটি সৌজন্য সাক্ষাৎ ছিল বলে দাবি করেছেন দুই নেতাই।

সোমবার গোসানিমারি কামতেশ্বরী মন্দিরে পুজো দিতে আসেন গ্রেটার কোচবিহার পিপলস অ্যাসোসিয়েশনের নেতা অনন্ত মহারাজ। সেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল বিধায়ক জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া এবং তাঁর অনুগামীরা। আনন্ত মহারাজ মন্দিরে পৌঁছোলে বিধায়ক তাঁকে নিজের পরিচয় দেন। এরপর দু’জনের মধ্যে বেশ কিছুক্ষণ কথাও হয়। পরে কামতেশ্বরী মন্দির থেকে অনন্ত মহারাজ রাজপাঠ ঢিবি, তেতুলতলা হয়ে নটবড় ধামে পুজো দেন।

- Advertisement -

যদিও এবিষয়ে তৃণমূল বিধায়ক বলেন, ‘আমি তাঁর মন্দিরে আসার কথা জানতে পেরে সেখানে যাই। ওঁনার সঙ্গে কথা বলি। এটি একটি সৌজন্য সাক্ষাৎ।’ তবে অনন্ত রায়ের তৃণমূলে যোগদানের প্রসঙ্গে বিধায়কে বলেন, ‘বিজেপি ছেড়ে কেউ আমাদের দলে এলে তাঁকে নিশ্চয়ই স্বাগত জানানো হবে।’ অনন্ত রায় অবশ্য জানান, তিনি মন্দিরে পুজো দিতে এসেছিলেন। সেই অবস্থায় কোনও রাজনৈতিক দলের কেউ দেখা করলে কিচ্ছু যায় আসে না।

যদিও এর আগেও রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ গ্রেটার নেতার বাড়িতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন। তখনই স্পষ্ট হয়ে যায় অনন্ত মহারাজকে নিজেদের দিকে টানতে তৃণমূল মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে এনিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মহারাজের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট থাকা সত্ত্বেও কীভাবে তিনি কোচবিহারের চকচকার বড়গিলায় তাঁর প্রাসাদে বহাল তবিয়তে রয়েছেন? তাঁকে গ্রেপ্তার করা তো দূরের কথা উলটে রাজ্য সরকার তাঁর নিরাপত্তার জন্য কেন তিনজন রক্ষী দিয়েছেন সেই প্রশ্নও উঠছে। দীর্ঘদিন ফ্রিজ থাকার পরেও দিনহাটার একটি ব্যাংকে মহারাজের দুটি অ্যাকাউন্ট কীভাবে পুনরায় সচল হল? তানিয়েও চর্চা চলছে রাজনৈতিক মহলে। তবে জল্পনা যাই হোক তৃণমূল মহারাজের সঙ্গে যাবতীয় সাক্ষাৎকার পর্বকে সৌজন্যের মোড়কে রেখে বিষয়টিকে হালকা করতে চাইছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।