মেখলিগঞ্জ, ২৮ ফেব্রুয়ারি: পুলিশ-প্রশাসনের তৎপরতায় অবশেষে ভুটান থেকে বাড়ি ফিরলেন ওদেশে বন্দি থাকা ৬ শ্রমিক। প্রায় তিন মাস ধরে তাদের ভুটানে আটকে রেখে বেগার খাটানো হচ্ছিল বলে অভিযোগ ছিল। এই খবর পেয়েই তাদেরকে দেশে ফেরানোর জন্য উদ্যোগী হন কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জের মহকুমাশাসক রামকুমার তামাং। মেখলিগঞ্জ থানার পুলিশও যথেষ্ট তৎপর হয়ে ওঠে। পুলিশ-প্রশাসনের তরফে দীর্ঘ একমাস প্রচেষ্টা চালানোর পরে অবশেষে সম্পূর্ন সুস্থ শরীরে তারা শুক্রবার ভোরে বাড়ি ফিরে এলেন। বাড়িতে আসার পর এদিনই মেখলিগঞ্জ থানায় গিয়ে পুলিশের কাছে কৃতজ্ঞতা জানালেন, রঘুনাথ রায়, ছিনোৎ রায়, ধনঞ্জয় রায়, রঞ্জিত রায়, কল্যাণ রায় ও কৃষ্ণচন্দ্র রায়রা।
তারা সকলে একসঙ্গে গত বছরের ১ ডিসেম্বর ভুটানে কাজের উদ্দেশ্যে যান। অতিরিক্ত পারিশ্রমিকের প্রলোভন দেখিয়ে ওই ছয় শ্রমিককে ভুটানে নিয়ে যাওয়া হয় বলে অভিযোগ। কিন্তু বেশি পারিশ্রমিক মেলা তো দূরের কথা, প্রায় তিন মাস ধরে তাদেরকে বেগার খাটানো হচ্ছিল। বাড়ি ফিরে আসার পর ওই শ্রমিকদের মধ্যে রঘুনাথ রায় বলেন, ‘ভুটানে গিয়ে আমরা চরম বিপদে পড়ে গেছিলাম। প্রায় তিন মাস কার্যত ওখানে বন্দি দশায় কাটিয়েছি। আমাদের বেগার খাটতে বাধ্য করা হয়েছে। বর্তমানে বাড়ি ফিরলেও কোনও পারিশ্রমিক হাতে পাইনি। তবুও শেষ পর্যন্ত যে প্রাণ নিয়ে দেশে ফিরতে পেরেছি, এটাই সবচেয়ে বড় ব্যাপার’।
এই ব্যাপারে মেখলিগঞ্জের মহকুমাশাসক রামকুমার তামাংও বলেন, ‘ওই শ্রলিকদের দেশে ফেরাতে প্রশাসনের তরফে কোনও ত্রুটি রাখা হয়নি। একটু দেরিতে হলেও শ্রমিকদের দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। সবার সহযোগিতাতেই এটা সম্ভব হয়েছে’।