সাঁকো থেকে পড়ে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর মৃত্যু, শোকের ছায়া গ্রামে

391

ময়নাগুড়ি: শুক্রবার দুপুরের গড়িয়ে বিকেল হয়েছে সবে। ময়নাতদন্তের পর মর্গ থেকে প‍্যাকেটবন্দি দেহ এল একহালিয়ার বাড়িতে। ছোট্ট অপর্ণাকে শেষ দেখা দেখতে ভিড় উপচে পড়ল বাড়িতে। শোকস্তব্ধ গোটা গ্রাম।

বৃহস্পতিবার শৌলি নদীতে নড়বড়ে সাঁকো থেকে পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয় ষষ্ঠ শ্রেণির ওই ছাত্রীর। সেতু পেরিয়ে আরও নজন বান্ধবীকে নিয়ে ওপারে চান্দেরডিঙায় বিশ্বকর্মা পুজোর প্রসাদ খেতে গিয়েছিল অপর্ণা। প্রসাদ খেয়ে বাড়ি ফেরার পথে দশজনই সেতু ভেঙে শৌলি নদীতে পড়ে যায়। স্থানীয়রা উদ্ধার কাজে হাত লাগান। অপর্ণা এবং আরও এক ছাত্রীকে উদ্ধার করে গুরুতর অবস্থায় ময়নাগুড়ি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।চিকিৎসকরা অপর্ণাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

- Advertisement -

অন‍্যজনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়। শুক্রবার একহালিয়ার বাড়িতে শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় অপর্ণার। অর্ণার বাবা মাধব রায় পেশায় সবজি ব‍্যবসায়ী। মা বিষয়া রায় গৃহবধূ। ৩ ভাইবোনের মধ্যে অপর্ণা ছোট। একহালিয়ার গ্রাম পঞ্চায়েত সদস‍্যা পুতুল মোদক বলেন, জলপাইগুড়ির সাংসদ জয়ন্তকুমার রায়কে লিখিতভাবে এই সেতুর কথা জানিয়েছি।

খাগড়াবাড়ি-২ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান বাবলু রায় বলেন, এখানে যাতে একটি ফুটব্রিজ তৈরি করা যায়, সেটি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাব। এছাড়া আমরা সাঁকোটিকে দ্রুত মেরামতির উদ‍্যোগ গ্রহণ করছি।