শ্বাসরোধ-জলে ডুবিয়ে দুই শ্যালককে খুন! ধৃত জামাইবাবু

152

আসানসোল: প্রথমে গলা টিপে শ্বাসরোধ, তারপর ডোবার জলে ডুবিয়ে দুই শ্যালককে প্রাণে মারার অভিযোগ উঠল হারু বাউরির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি আসানসোলের বারাবনি ব্লকের আসানসোল উত্তর থানার নুনি উঁচু বাউরি পাড়ার। মৃতরা বুধন বাউরি (৩৭) ও অশোক বাউরি (৩৫)। ঘটনায় খুনের মামলা রুজু করে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে আসানসোল উত্তর থানার পুলিশ। ধৃত হারু বাউরি বর্তমানে আসানসোল জেলা হাসপাতালের পুলিশ সেলে চিকিৎসাধীন। আসানসোল-দূর্গাপুর পুলিশের এসিপি (সেন্ট্রাল-১) মানবেন্দ্র দাস জানান, সঠিক কী কারণে এই ঘটনা তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু হয়েছে। তবে, অভিযুক্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় তাকে এখনও জেরা করা সম্ভব হয়নি।

জানা গিয়েছে, ধৃত হারু বাউরি বাঁকুড়া জেলার বড়জোড় গ্রামের বাসিন্দা। তবে, আসানসোল উত্তর থানার নুনি উঁচু বাউরি পাড়ার বাসিন্দা তুলসী বাউরিকে বিয়ে করার পর থেকেই ঘর জামাই হিসেবে শ্বশুরবাড়িতেই থাকে সে। পেশায় দিনমজুর হারু প্রায়শই নেশাগ্রস্ত অবস্থায় স্ত্রী ও শ্যালকদের সঙ্গে ঝগড়া করত। অভিযোগ, শনিবার রাতে বাড়ির অদূরে অশোক ও বুধন বাউরি একসঙ্গে মদ পান করছিলেন। কিছু সময় বাদে সেখানে পৌঁছোয় হারু। তাঁদের মধ্যে অশান্তি শুরু হয়। এরপরই অশোক ও বুধনের গলা টিপে শ্বাসরোধ করার পাশাপাশি স্থানীয় একটি ডোবার জলে ডুবিয়ে দেয়। ঘটনাটি জানাজানি হতেই রাত প্রায় সাড়ে বারোটা নাগাদ পরিবারের সদস্য়দের তরফে তাঁদের উদ্ধার করে আসানসোল জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করেন।

- Advertisement -

হারু বাউরির স্ত্রী তুলসী বাউরি বলেন, ‘মাঝেমধ্যেই ভাইদের ঝগড়া করত আমার স্বামী। তবে আমি বুঝতে পারিনি সে এমন কিছু করবে। আমি চাই স্বামীর ফাঁসি হোক। সে যে অপরাধ করেছে, তার কোনও ক্ষমা হয় না।’