৪ দিন মায়ের দেহ আগলে ছেলে, চাঞ্চল্য চোপড়ায়

267

চোপড়া: চারদিন ধরে মায়ের মৃতদেহ আগলে রাখলেন ছেলে। ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে চোপড়ার সুভাষনগর এলাকায়। চোপড়ার ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে সুভাষনগর এলাকার বাসিন্দা রামকৃষ্ণ চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে তাঁর বৃদ্ধা মায়ের মৃতদেহ টানা চারদিন ধরে আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি পুলিশের নজরে আনেন প্রতিবেশীরা। এরপর ঘটনাস্থলে আসে চোপড়া থানার পুলিশ। গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখেন পুলিশ আধিকারিকরা। প্রতিবেশীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, রামকৃষ্ণবাবু বেশ কয়েক বছর ধরে মানসিক রোগে ভুগছিলেন। ইতিমধ্যে এক মেয়ের বিয়ে হয়। বউ এই বাড়িতে থাকছেন না। মা ভিক্ষাবৃত্তি করে ছেলেকে নিয়ে সংসার চালাতেন। সম্প্রতি রামকৃষ্ণ চক্রবর্তীর মায়ের কোনওরকম খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। এরপরই প্রতিবেশীরা তাঁর মায়ের খোঁজখবর নেন। আর এতেই তিনি অকপটে স্বীকার করেন যে, তাঁর মা মারা গিয়েছেন। তারপরই রহস্যের উন্মোচন হয়।

- Advertisement -

রবিবার রামকৃষ্ণবাবু নিজেই তাঁর মায়ের পচাগলা মৃতদেহটি ঘর থেকে বের করে উঠোনে নিয়ে আসেন। পুলিশ গিয়ে মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়।

স্থানীয় বাসিন্দা অভিজিৎ ভৌমিক বলেন, ‘রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী অনেকদিন ধরে মানসিক রোগে ভুগছিলেন। প্রতিবেশীদের সঙ্গে তাঁর বনিবনা নেই। কেউ কিছু বলতে গেলে ভয় দেখাতেন। দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়াতে প্রতিবেশীদের মধ্যে সন্দেহ দানা বাঁধে। পরে জানা যায় যে, তাঁর মায়ের দেহটি তিনি ঘরের মধ্যে রেখেছিলেন। এ ব্যাপারে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।’

চোপড়া থানার পুলিশ সূত্রে খবর, এ ধরনের একটি অভিযোগ রয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।