তোমার জন্যই ফুটবল দেখতাম, শোক সৌরভের

450

অরিন্দম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : প্রথমে কথা বলতে চাইছিলেন না। পরে বেশ কয়েকবার অনুরোধের পর রাত প্রায় সাড়ে দশটা নাগাদ যখন মোবাইল ফোনটা ধরলেন, গলাটা শুনে বুঝতে সমস্যা হচ্ছিল কার গলা শুনছি। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের গলায় স্বজন হারানোর বেদনা। মনে অদ্ভুত যন্ত্রণা। তিনি কিংবদন্তি ক্রিকেটার। প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক। বর্তমানে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি। কিন্তু সৌরভের প্রথম প্রেম হল ফুটবল। ক্রিকেটের পাশে দেশ-দুনিয়ার ফুটবলেরও নিয়মিত খবর রাখেন তিনি। আর তাঁর প্রিয় ফুটবলার? সহজ জবাব, দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা। ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো বিশ্বকাপে মারাদোনার বাঁ পায়ে জাদু দেখে ফুটবল অনুরাগী হয়ে উঠেছিলেন সৌরভ। মারাদোনার প্রতি সেই প্রেম ও আবেগ আজও অটুট। আর তাই রাতের দিকে আচমকা মারাদোনা আর নেই শোনার পর থেকেই মহারাজের মনের অন্দরে একরাশ স্মৃতি। সৌরভ বলেন, আমার হিরো চলে গেল। আমার কাছে ফুটবল মানেই মারাদোনা। ওর সঙ্গে দারুণ বন্ধুত্ব ছিল, এমন নয়। কিন্তু বারকয়েক দেখা হয়েছিল। ভালো লেগেছিল কথা বলে। তিনি আরও বলছিলেন, তোমার জন্যই ফুটবলের প্রতি টান তৈরি হয়েছিল। সেই তুমিই আজ চলে গেলে। মারাদোনার আত্মার শান্তি কামনা করি। নিয়মিত ভারতীয় ক্রিকেট দলকে অনুসরণ যাঁরা করেন, তাঁরা সবাই জানেন ভারতীয় ক্রিকেটারদের একটা বড় অংশ অনুশীলনে ফুটবল খেলেন নিয়মিত। সৌরভের মতোই শচীন তেন্ডুলকার, বীরেন্দ্র শেহবাগ, হরভজন সিং, ভিভিএস লক্ষ্মণদেরও ফুটবলপ্রেমের নেপথ্যে দিয়েদো মারাদোনা। কৈশোর থেকে যৌবনের পথে এগিয়ে চলার সময় লক্ষ্মণরাও মারাদোনা ম্যাজিকে মজেছেন। লক্ষ্মণের সঙ্গে উত্তরবঙ্গ সংবাদের তরফে যোগাযোগ করা হয়েছিল। ভিভিএস বেশ আবেগপূর্ণ গলায় বলে দিলেন, আজ দুনিয়ার ক্রীড়া সমাজের জন্য অত্যন্ত দুঃখের দিন। মারাদোনা ইজ নো মোর, আমার বিশ্বাস হচ্ছে না। দিনকয়েক আগে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন বলে শুনেছিলাম। হঠাত্ কী যে হল, কে জানে। মারাদোনার আত্মার শান্তি কামনা করি। একইভাবে হরভজন সিং বলছিলেন, অবসর সময়ে ইউটিউবে মারাদোনার বিভিন্ন ম্যাচের ক্লিপিংস দেখার একটা অভ্যাস আছে আমার। আগামীদিনে আরও বেশি করে দেখব। কিন্তু মারাদোনার প্রয়াণের শূন্যতা তখন হয়তো তাড়া করবে আমায়। ক্রিকেট ঈশ্বর শচীন তেন্ডুলকারের টুইট, ফুটবল ও বাকি ক্রীড়া বিশ্ব আজ সর্বকালের সেরা ক্রীড়াবিদকে হারাল। রেস্ট ইন পিস দিয়েগো মারাদোনা। তোমার আত্মার শান্তি কামনা করি।