ম্যাচ উইনার ঋষভে মজে সৌরভ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : ভালো লাগাটা ছিলই।

দিল্লি ক্যাপিটালসের সঙ্গে কাজ করার সময় শিষ্য হিসেবে পেয়েছিলেন। অভিজ্ঞ চোখ বুঝে গিয়েছিল একে রোখা যাবে না। গত কয়েক মাসে ঠিক সেটাই করে চলেছেন ঋষভ পন্থ। প্রিয় শিষ্যের যে দাপটের প্রশংসায় এদিন উচ্ছ্বাসে ভাসলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। জানিয়ে দিলেন, তিনি ঋষভে-মজে রয়েছেন। যথার্থ অর্থেই ঋষভ ম্যাচ উইনার। একার হাতে যেকোনো ম্যাচের ভাগ্য বদলে দিতে পারে।

- Advertisement -

অস্ট্রেলিয়া সফরের পর হোম সিরিজে ইংল্যান্ড। ভারতীয় দলের সাফল্যে সমান উৎসাহী সৌরভ। কৃতিত্ব দিচ্ছেন বর্তমান দলের সবাইকে। জসপ্রীত বুমরাহ, মহম্মদ সামি, শার্দূল ঠাকুর, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি- বিরাটের পুরো দলকেই পছন্দ দাদার। তবে বর্তমান বোর্ড সভাপতির পছন্দের তালিকায় পয়লা নম্বরে বাঁহাতি তরুণ তুর্কি ঋষভই।

ইউটিউবে এক চ্যাট শোয়ে মহারাজ বলেন, বর্তমান দলের প্রত্যেকেই দুর্দান্ত খেলোয়াড়। আর বোর্ড সভাপতি হিসেবে কোনও একজনকে বেছে নেওয়া আমার উচিত নয়। বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মার ব্যাটিং উপভোগ করি। আমি মজে রয়েছি ঋষভ পন্থে। ভালো লাগে জসপ্রীত বুমরাহ, মহম্মদ সামিকে। সাহসী চরিত্রের জন্য পছন্দ করি শার্দূল ঠাকুরকে।

আলাদা করে অবশ্য ঋষভের ম্যাচ জেতানোর ক্ষমতার প্রসঙ্গ তুলতে ভোলেননি সৌরভ। তাঁর কথায়, ঋষভ জেনুইন ম্যাচ উইনার। একার হাতে ম্যাচ জেতাতে পারে। সিডনি টেস্টে আর ৫-৪ ওভার টিকে গেলে ম্যাচটা জিতে যায় ভারত। ম্যাচ উইনারদের বরাবরই আমি পছন্দ করি। অধিনায়ক থাকাকালীন যেমন আমি পেয়েছিলাম বীরেন্দ্র শেহবাগ, যুবরাজ সিং, মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। সুনীল গাভাসকার যখন ছিলেন, তখন চিন্তা ছিল, ওঁর পর কে। শচীন, দ্রাবিড়, কুম্বলেরা আসে এরপর। এখন কোহলি, রোহিত, ঋষভরা দলের ভরসা। প্রতিভার অভাব কোনোদিন ঘটেনি। ভারত থেকে প্রত্যেক প্রজন্মেই সেরা ক্রিকেটার বেরিয়েছে বলে মত দাদার।