শোভনের কেবিনেই থাকতে চান, আর্জি বৈশাখীর

214

কলকাতা: সিবিআই গোয়েন্দারা যখন শোভন চট্টোপাধ্যায়কে তাঁর দক্ষিণ কলকাতার মেঘনাথ সাহা সরণির বেদীভবনের বিলাসবহুল ফ্ল্যাট থেকে নিয়ে এসেছিলেন সেসময় বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। সেই কারণেই সিবিআইয়ের তরফে শোভনবাবুর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কে নিজাম প্যালেসে ডেকে পাঠানো হয়েছিল। তাঁর হাতে অ্যারেস্ট মেমো তুলে দেওয়ার জন্য। ফলে নিজাম প্যালেসে যখন বিভিন্ন ঘটনা ঘটে চলছিল সেসময় বৈশাখীদেবীর দেখা মেলেনি। পরে শোভনবাবুকে সংশোধনাগারে নিয়ে যাওয়ার পর মঞ্চে হাজির থাকতে দেখা যায় বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এরপর শোভনবাবুকে ভর্তি রাখা এসএসকেএম হাসপাতালের উডবার্ন ওয়ার্ডে হাজির হয়ে তিনি রীতিমতো নাটক শুরু করে দেন। তিনি কান্নাকাটি জুড়ে দিয়ে দাবি করতে থাকেন, শোভনবাবুর সঙ্গে একই কেবিনে তাঁকেও থাকতে দিতে হবে। তাঁর বক্তব্য ছিল, অনেক ওষুধ খান শোভনবাবু। আর তিনি তা খাইয়ে না দিলে তা খেতে পারেন না শোভনবাবু। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবশ্য তাঁর সেই আবদার নাকচ করে দেয়। আটক অন্যান্য নেতাদের মধ্যে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের স্ত্রীও ছুটে যান সংশোধনাগার ও হাসপাতালে। মন্ত্রী ববি হাকিমের এক মেয়েকেও সংশোধনাগারে গিয়ে তাঁর বাবার সঙ্গে দেখা করতে দেখা যায়।

সোমবার সকালে গ্রেপ্তারের পর থেকেই কড়া মনোভাবে থাকতে দেখা গিয়েছিল ববি হাকিমকে। কিন্তু গতরাতে সংশোধনাগারে নিয়ে যাওয়ার সময় তাঁকে কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা যায়। তিনি জানান, কলকাতা পুরসভার প্রশাসনিক বোর্ডের প্রধান হিসাবে কলকাতার মানুষের কোভিড মোকাবিলায় তিনি অংশ নিতে পারছেন না। যা নিয়ে তাঁর মন ভারাক্রান্ত।

- Advertisement -