জরায়ু ক্যানসার চিকিৎসায় আসানসোল জেলা হাসপাতালে চালু বিশেষ ক্লিনিক

138

আসানসোল: আসানসোল জেলা হাসপাতালে জরায়ুর ক্যানসার চিকিৎসায় এবার চালু হল বিশেষ ক্লিনিক। জেলা হাসপাতালের পুরোনো গাইনি ওয়ার্ডে এই ক্লিনিকের জন্য বসানো হয়েছে অত্যাধুনিক ‘কলপোস্কপ’ মেশিন। কলপোস্কপির মাধ্যমে জরায়ুতে ক্যানসার হয়েছে এমন রোগীদের চিহ্নিত বা স্ক্রিনিং করা হবে। এরপরেই জরায়ু ক্যানসার আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য আসানসোল জেলা হাসপাতাল থেকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজে পাঠানো হবে। সাধারণত জেলা হাসপাতালে এই মেশিন থাকে না। তবে, আসানসোল জেলা হাসপাতালের গুরুত্বের কথা ভেবে স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে এই পরিকল্পনা।

আসানসোল জেলা হাসপাতালের স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে থাকছে কলপোস্কপ মেশিন। গোটা পশ্চিম বর্ধমান জেলার ব্লক থেকে আসা রোগীদের আসানসোল জেলা হাসপাতালে এই ক্লিনিকে স্ক্রিনিং করা হবে। সেক্ষেত্রে ব্লকের সিএইচও বা কমিউনিটি হেল্থ অফিসারদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে ইতিমধ্যে। আপাততঃ জেলা হাসপাতালের দুই সিনিয়র গাইনোকোলজিস্ট ডাঃ তপন বন্দোপাধ্যায় ও ডাঃ মনোজিৎ দাস এই প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ করছেন। পরবর্তীতে জেলা হাসপাতালের স্ত্রী রোগ বিভাগের সকল চিকিৎসকেরাই এই ক্লিনিকে বসবেন।

- Advertisement -

জেলা হাসপাতালের সুপার ডাঃ নিখিলচন্দ্র দাস বলেন, ‘এই মেশিন বসানোয় জেলার মানুষদের সুবিধা হবে। প্রাথমিকভাবে এই মেশিনের সাহায্যে রোগীদের স্ক্রিনিং করা হবে। সবকিছুই সরকারিভাবে করা হবে।’

স্ত্রী রোগ বিভাগের চিকিৎসকরা জানান, ৩০ বছরের ঊর্ধ্বে মহিলাদের এই মেশিনের সাহায্যে স্ক্রিনিং করা হবে। মহিলাদের বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে স্ত্রী রোগ বা গাইনিক নানা ধরনের শারীরিক সমস্যা তৈরি হয়। যা থেকে পরবর্তী সময়ে অনেকেরই জরায়ুতে ক্যানসার দেখা দেয়। একবারে প্রথমে খালি চোখে তা ধরা পড়ে না বা বোঝা যায় না। চিকিৎসকরা বলেন, ‘কলপোস্কপির সাহায্য আমরা সিমটোম বা শারীরিক সমস্যা দেখে রোগীদের পরীক্ষা করব। তখনই ধরা পড়বে তার জরায়ুর ক্যান্সার হবে কিনা। যদি এখানে স্ক্রিনিংয়ে ধরা পড়ে তাহলে সেই রোগীকে আমরা পরবর্তী চিকিৎসার জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজে পাঠাব।