আঠা তৈরির কারখানায় বিশেষ অভিযান

196

ঘোকসাডাঙ্গা: প্লাইউডের আঠা তৈরির কারখানায় যৌথ অভিযান চালালো পুলিশ ও কৃষি দপ্তরের নেতৃত্বে এক বিশেষ দল। মঙ্গলবার মাথাভাঙ্গা-২ ব্লকের ঘোকসাডাঙ্গার ঘটনা। অভিযোগ, অবৈধভাবে ভর্তুকিযুক্ত ইউরিয়া ব্যবহার করা হচ্ছে ওই কারখানায়। এদিনের বিশেষ অভিযানে উদ্ধার হয়েছে বিপুল পরিমাণ ভর্তুকিযুক্ত ইউরিয়া।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কৃষক স্বার্থে ভর্তুকি দিয়ে ইউরিয়া সহ অন্যান্য কৃষিজ সার সরকারিভাবে বিভিন্ন ফারটিলাইজার দোকান থেকে বিক্রি হয়৷ এছাড়াও ইন্ডাস্ট্রির জন্য ভর্তুকিহীন ইউরিয়া সারও নির্দিষ্ট দোকানে পাওয়া যায়। ভর্তুকিযুক্ত সার কেবল কৃষকরাই ব্যবহার করতে পারবেন বলে সরকারি নির্দেশ রয়েছে। তবে, ইউরিয়া শুধু কৃষি কাজের জন্য নয় এর ব্যবহার হয় বিভিন্ন শিল্পেও৷ কিন্তু কৃষি ক্ষেত্রে ব্যবহৃত ইউরিয়া অবৈধভাবে ইন্ডাস্ট্রিগুলিতে ব্যবহার হচ্ছে বলে অভিযোগ।

সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই এদিন ঘোকষাডাঙ্গা পুলিশ সঙ্গে নিয়ে কোচবিহার সহ-কৃষি অধিকর্তা প্রিয়নাথ দাস, মাথাভাঙ্গা-২ ব্লক সহ-কৃষি অধিকর্তা মলয়কুমার মণ্ডল বিশেষ অভিযান চালান ঘোকসাডাঙ্গা রেলস্টেশন বাজার সংলগ্ন প্লাইউডের আঠা তৈরির কারখানায়। অবৈধভাবে মজুত করে রাখা প্রায় ৪৫ বস্তা ইউরিয়া উদ্ধার হয় এদিনের অভিযানে। পাশাপাশি প্রায় ১০০টি উদ্ধার খালি বস্তা উদ্ধার হয় এদিন।

- Advertisement -

সহ-কৃষি অধিকর্তা প্রিয়নাথ দাস বলেন, ‘মূলত ইন্ডাস্ট্রিগুলিতে ব্যবহৃত ইউরিয়ায় সরকারি ভর্তুকি থাকে না, যার বাজার মূল্য প্রায় ১৪০০-১৫০০ টাকা। অন্যদিকে, কৃষিক্ষেত্রে ব্যবহৃত ভর্তুকিযুক্ত ইউরিয়ার বাজার মূল্য ২৬৬ টাকা প্রতি বস্তা। যা অন্যান্য শিল্পক্ষেত্রে ব্যবহার করার কথা নয়। এদিন ঘোকসাডাঙ্গার যে প্লাইউডের আঠা তৈরির কারখানা রয়েছে সেখানে পৌঁছে দেখি ভর্তুকিযুক্ত ইউরিয়া ব্যবহার হচ্ছে। প্রায় ৪৫ বস্তা ভর্তি এবং খালি প্যাকেট উদ্ধার হয়েছে। বিষয়টি মিল মালিক স্বীকার করে নিয়েছে। সমস্তটাই রিপোর্ট আকারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাব। পরে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী মিল মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’