করোনার জেরে সিরিজে দেরির ভাবনা

কলম্বো : টিম রাহুল দ্রাবিড়ের মিশন শ্রীলঙ্কায় আশঙ্কার কালো মেঘ।

প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা শিবিরে করোনার থাবা আরও গভীরে। গতকাল শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং কোচ গ্র‌্যান্ট ফ্লাওয়ারের আক্রান্তের খবর মিলেছিল। সেই তালিকায় এবার দলের ভিডিও অ্যানালিস্ট জিটি নিরোশন। মঙ্গলবার শুরু ভারত-শ্রীলঙ্কা সিরিজকে নিয়ে অনিশ্চয়তা যা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সিরিজ পিছিয়ে ১৭ জুলাই শুরু করা হতে পারে।

- Advertisement -

সোমবার ইংল্যান্ড সফর থেকে দেশে ফেরে শ্রীলঙ্কা। দলের সঙ্গেই ছিলেন দুই আক্রান্ত। সতর্কতাস্বরূপ পুরো দলই আপাতত আইসোলেশনে। ভারত-সিরিজের প্রস্তুতির বদলে ঘরবন্দি দাসুন শনাকারা। আশঙ্কা, আক্রান্তের তালিকা আরও বাড়তে পারে। ফলে, ভারতের বিরুদ্ধে দল নামানো নিয়ে প্রশ্নচিহ্ন বড়ো হচ্ছে। থাকছে শিখর ধাওয়ানের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দলের নিরাপত্তার বিষয়টিও।

শ্রীলঙ্কা সিরিজের পরই ইংল্যান্ড দলের সাতজন সদস্য করোনার শিকার হয়েছিলেন। পাক সিরিজে পুরো দলই বদলে ফেলতে হয় ইংল্যান্ডকে। মনে করা হচ্ছে, তখনই শ্রীলঙ্কা শিবিরেও ঢুকে পড়ে করোনা। এছাড়া বিলেত সফরে দলের তিন ক্রিকেটারের বায়োবাবল ভাঙার বিষয়টিও সামনে আসে, যা নিয়ে শ্রীলঙ্কা বোর্ড তদন্ত কমিটিও গড়েছে। তবে এখন মূল চ্যালেঞ্জ সুষ্ঠুভাবে ভারত-সিরিজ আয়োজন।

গতকাল বলা হয়েছিল প্রত্যেকের করোনা টেস্ট হয়েছে। একমাত্র গ্র‌্যান্ট ফ্লাওয়ারও পজিটিভ। যদিও ভিডিও অ্যানালিস্টের আক্রান্তের খবরে পুরো ছবিটাই বদলে গিয়েছে। দুজনেই অতি-সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত। ফলে দলের বাকিদের মধ্যে সংক্রমণের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না দলের মেডিকেল টিম।

শুক্রবারই প্র‌্যাকটিসে নামার কথা ছিল। কিন্তু আইসোলেশনের সময় আরও ২ দিন বাড়ানো হয়েছে। আরও একটা করোনা-টেস্ট হবে। অর্থাৎ, অনুশীলন ছাড়াই সরাসরি ভারতের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে শ্রীলঙ্কা। এমনকী ঝুঁকি এড়াতে ইংল্যান্ড-ফেরত পুরো দলকে ছুটিতে পাঠানোর সম্ভাবনাও থাকছে। সূত্রের খবর, ভারতের বিরুদ্ধে বি টিম খেলাতে পারে তারা। কলম্বো ও ডাম্বুলায়, শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের দুটো পৃথক গ্রুপ বায়োবাবলে অনুশীলন চালাচ্ছে। তাদের নিয়ে দল গড়া হতে পারে।