ভুল শুধরে প্রত্যাবর্তনের অঙ্গীকার নাইটদের

চেন্নাই : স্বপ্নভঙ্গ। আচমকা ছন্দপতন। প্রবল সমালোচনা। নতুনভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার।

চুম্বকে এই হল মুম্বইয়ে বিরুদ্ধে দুঃস্বপ্নের রাতের পর কলকাতা নাইট রাইডার্স শিবির। চিপক থেকে টিম হোটেলে ফেরার পর কোনও হইচই নেই নাইট শিবিরে। পুরো দল যেন মৃত্যুপুরী! যেখানে শ্মশানের নীরবতা সর্বত্র।

- Advertisement -

এভাবেও ম্যাচ হারা যায়, সমর্থকদের মতোই কেকেআরের অন্দরের অনেকেই বিশ্বাস করতে পারছেন না এখনও। অধিনায়ক ইয়োন মরগ্যানও অজুহাত খুঁজে বেড়াচ্ছেন। কখনও চিপকের মন্থর বাইশ গজকে দুষছেন। কখনও বা দলের ব্যাটসম্যানদের দায়ী করছেন ব্যর্থতার জন্য। আবার কখনও মুম্বইয়ে ট্রেন্ট বোল্ট, জসপ্রীত বুমরাহদের প্রশংসায় ভরিয়ে দিচ্ছেন। আইপিএলের সবচেয়ে সফল দল রোহিত শর্মার মুম্বইয়ে থেকে অনেক কিছু শেখার রয়েছে বলেও মনে করছেন কেকেআর অধিনায়ক। সঙ্গে আগামীদিনে ভুল শুধরে ঘুরে দাঁড়ানোর কথাও শোনা গিয়েছে তাঁর মুখে।

রবিবার চেন্নাইয়ে প্রতিযোগিতার তৃতীয় ম্যাচ কলকাতা নাইট রাইডার্সের। প্রতিপক্ষ বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। মাঝের কয়েকদিনে মুম্বই ধাক্কা সামলে ওঠার চ্যালেঞ্জ নাইটদের। দীনেশ কার্তিক, আন্দ্রে রাসেল বাইশ গজে শেষ ওভারে থাকার পরও কেকেহার মানতে পারছে না ক্রিকেটমহল। প্রাক্তন ক্রিকেটার বীরেন্দ্র শেহবাগ ডিকে-রাসেলের তুমুল সমালোচনা করে আজ বলেন, মরগ্যান পজিটিভ, আগ্রাসী ক্রিকেটের কথা বলছে। কিন্তু আমি ওর কথার সঙ্গে দলের খেলার মিল পাচ্ছি না। মরগ্যান নিজে, সাকিব, নীতিশ, শুভমানরা সবাই পজিটিভ মানসিকতা নিয়ে মাঠে নেমেছিল। ওদের ব্যাটিংয়ে সেটা প্রমাণ হয়েছে। কিন্তু ডিকে-রাসেল? ওদের ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছিল, টি২০ ক্রিকেটে চার-ছক্কা বলে কিছু নেই। ইনিংস গড়তে নেমেছে ওরা।

দলের পারফমেন্সে হতাশ কিং খান। গত রাতে ম্যাচ শেষের পর সোশ্যাল দুনিয়ায় নিজের হতাশা গোপন করেননি বাজিগর। রাতের ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে হাজির হয়ে নাইট সমর্থকদের ম্যাচ কা মুজরিম আন্দ্রে রাসেল বলেন, হ্যাঁ, আমি শাহরুখের মন্তব্যের সঙ্গে একমত। হতাশাজনক পারফরমেন্স। কিন্তু এটাই তো ক্রিকেট, বরাবরই অনিশ্চয়তায় ভরা। শেষ বল না হওয়া পর্যন্ত কোনও কিছু চূড়ান্ত নয়।

দুনিয়াজুড়ে নিয়মিতভাবে পেশাদার টি২০ লিগে খেলে বেড়ান ক্যারিবিয়ান দৈত্য। টি২০ ক্রিকেটে তাঁর দীর্ঘ অভিজ্ঞতা। সেই অভিজ্ঞতা থেকে রাসেল বলেন, সবে দুটো ম্যাচ হয়েছে। প্রতিযোগিতার এখনও অনেক বাকি। দলের আত্মবিশ্বাস ভালো জায়গায় রয়েছে। টি২০ ক্রিকেটে এক বা দুই ওভারে খেলার ভাগ্য বদলে যায়। গত রাতে আমাদের সঙ্গেও সেটাই হয়েছে। ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে পরের ম্যাচের দিকে তাকাতে হবে আমাদের। নীতিশ রানাও সতীর্থ রাসেলের মতোই পরের ম্যাচে আরও শক্তিশালী হয়ে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন।

এদিকে, কেকেআর শিবিরের একটা বড়ো অংশ মনে করছে, মুম্বইয়ে বিরুদ্ধে অবিশ্বাস্য হারের ধাক্কা সামলে ডিকে-রাসেল-মরগ্যানদের কামব্যাক সহজ হবে না। শুধু তাই নয়, পরবর্তী সময়ে প্লে-অফ রাস্তা বন্ধ হয়ে গেলে এই মুম্বই ম্যাচের ব্যর্থতার কথা প্রথমেই সামনে আসবে। এভাবেই শেষ কয়েকটি মরশুম ব্যর্থ হয়েছে কেকেআর।