চাঙ্গা সারা বিশ্বের শেয়ার বাজার, প্রভাব পড়েছে এদেশেও

653

সূচকের স্বপ্নের দৌড় চলছেই। বিগত সপ্তাহে টানা উত্থানের হাত ধরে সূচক সেনসেক্স ও নিফটি ফের নতুন নজির গড়ল। সেনসেক্স-এর সর্বকালীন সেরা উচ্চতায় ৪৭,০৬২.০২ এবং নিফটি ১৩,৭৭৩.২৫। সূচকের এমন দৌড় লগ্নিকারীদের খুশি করলেও বর্তমান পরিস্থিতিতে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করাও জরুরি। দীর্ঘমেয়াদে ভারতীয় শেয়ার বাজারে লগ্নি এখনও লাভজনক, তবে মাঝেমধ্যে বড় ধরনের সংশোধন হতে পারে। লগ্নির পরিকল্পনা করতে হবে সে কথা মাথায় রেখেই। সংশোধনীতে ভয় না পেয়ে একে লগ্নির সুযোগ হিসেবে দেখা যেতে পারে। কোভিড-১৯ মহামারি শেয়ার বাজারে যে ধাক্কা দিয়েছিল তা সামলে নিয়ে আরও এগিয়েছে শেয়ার সূচক সেনসেক্স ও নিফটি। আগামীদিনে অর্থনীতির প্রাথমিক বিষয়গুলিই নিয়ন্ত্রণ করবে সূচকের ওঠা-নামাকে।

বিগত সপ্তাহে সূচকের উত্থানে সব থেকে বড় ভূমিকা নিয়েছে আন্তর্জাতিক শেয়ার বাজার। মার্কিন শীর্ষ ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ সুদের হার অপরিবর্তিত রাখার পাশাপাশি বাজারে নগদের জোগান অব্যাহত রাখতে পদক্ষেপ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এর জেরে চাঙ্গা হয়েছে সারা বিশ্বের শেয়ার বাজার। তার প্রভাব পড়েছে এদেশেও। সূচকের এই স্বপ্নের দৌড়ে অন্যতম ভূমিকা আছে বিদেশি বিনিযোগকারী সংস্থাগুলির। গত এপ্রিল-মে মাস থেকে টানা লগ্নি করে আসছে তারা। এই লগ্নিপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে আরও উঁচুতে যাবে ভারতীয় শেয়ার বাজার। কোভিড-১৯ টিকা বাজারে আসায় বিশ্বজুড়ে মহামারি নিয়ন্ত্রণের আশা তৈরি হয়েছে। ২০২১-এর  মাঝামাঝি মহামারি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে আসতে পারে। অর্থনীতি ঘিরে তাই নতুন আশা তৈরি হয়েছে। চলতি অর্থবর্ষের এপ্রিল-জুন কোয়ার্টারে দেশের জিডিপি ২৩.৯ শতাংশ সংকুচিত হয়েছিল। জুলাই-সেপ্টেম্বর কোয়ার্টারে সংকোচন কমে ৭.৫ শতাংশ হয়েছে। প্রত্যাশা ছাড়িয়ে এমন ঘুরে দাঁড়ানো দেশের অর্থনীতি নিয়ে ইতিবাচক বার্তাই দিচ্ছে। বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং রেটিং সংস্থার পূর্বাভাসও তাই ইতিবাচক হয়েছে। যার প্রভাব পড়ছে ভারতীয় শেয়ার বাজারে। আশার পাশাপাশি আশঙ্কাও আছে। এখনও দেশজুড়ে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড স্বাভাবিক হয়নি। কৃষি আইন নিয়ে কৃষকদের আন্দোলন উত্তর ভারতের বিভিন্ন শিল্পাঞ্চলে বড় প্রভাব ফেলেছে। উৎসবের মরশুম শেষ হওয়ার পর বিভিন্ন পণ্যের চাহিদা কমতে পারে। মূল্যবৃদ্ধির হার এখন সামান্য কমলেও আগামীদিনে তা কোনদিকে যায় সেদিকেও নজর রাখতে হবে। বিদেশি লগ্নিপ্রবাহ অব্যাহত থাকে কি না তার ওপরও নির্ভর করবে সূচকের উত্থান।

- Advertisement -

চলতি বছরের একেবারে শেষলগ্নে এসে পৌঁছেছি আমরা। কোভিড-১৯ মহামারি বছরভর আমাদের জীবনে প্রভাব ফেললেও ভারতীয় শেয়ার বাজারকে অনেক কিছু ফিরিয়ে দিয়েছে। লগ্নিকারীদের বড় অঙ্কের মুনাফার সন্ধান দিয়েছে। এই লেখায় সুপারিশ করা অধিকাংশ শেয়ারই লক্ষ্যমাত্রা পেরিয়ে গিয়েছে। যে গুটিকয়েক শেয়ার সেই লক্ষ্যে এখনও পৌঁছোয়নি, তাদের নিয়ে আশা রাখতে পারেন লগ্নিকারীরা। সোনা-রুপোর দাম একটা গণ্ডির মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। আাগামীদিনেও পরিস্থিতি পরিবর্তনের সম্ভাবনা কম।