স্থায়ী ম্যানেজার না থাকায় কর্মবিরতি বিচ চা বাগানে

97

হাসিমারা: বাগানে দীর্ঘ দিন ধরে স্থায়ী ম্যানেজার নিয়োগ করা হচ্ছে না। যার ফলে শ্রমিকদের বিভিন্ন দাবি মিটছে না। এই অভিযোগ তুলে আলিপুরদুয়ার জেলার হাসিমারা পুলিশ ফাঁড়ির অধীন বিচ চা বাগানের ফ্যাক্টারির শ্রমিকরা শনিবার কর্মবিরতি পালন করলেন। এদিন সকাল থেকে ম্যানেজার নিয়োগের দাবিতে ফ্যাক্টারির সামনে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের তরফে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হয়। একাধিক শ্রমিক সংগঠনের অভিযোগ সম্প্রতি বাগান কর্তৃপক্ষ ম্যানেজার পদে নিয়োগ করে। কিন্তু নতুন ম্যানেজার কাজে যোগ দেওয়ার আগেই তাঁকে ওই পদ থেকে সড়িয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ তৃণমূল, বিজেপি, আরএসপির মতো বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের। ঘটনায় ওই বাগানের শ্রমিক মহলে ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। অবশ্য বাগান কর্তৃপক্ষের তরফে দ্রুত ম্যানেজার নিয়োগের আশ্বাস পেয়ে বেলা ১২টা নাগাদ শ্রমিকরা কাজে যোগ দেন।

বাগান সূত্রে জানা গিয়েছে, গত বছর ডিসেম্বর মাসে বাগানের ম্যানেজারের আকষ্মিক মৃত্যুর পড় প্রায় ৩ মাস বাগানে কোন ম্যানেজার ছিলেন না। দু’সপ্তাহ আগে নতুন ম্যানেজার নিয়োগ করা হয়। শুক্রবার শ্রমিকরা জানতে পারেন ওই ম্যানেজারকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এরপরেই শ্রমিক ও শ্রমিক সংগঠনের তরফে স্থায়ী ম্যানেজারের নিয়োগ নিয়ে বাগানে অসন্তোষ শুরু হয়।

- Advertisement -

চা বাগান তৃণমূল কংগ্রেস মজদুর ইউনিয়নের বাগান কমিটির সম্পাদক সুরেশ তিরকি বলেন, ‘ম্যানেজার না থাকায় শ্রমিকরা নিজেদের প্রাপ্য সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। কী কারণে নতুন ম্যানেজারের নিয়োগ বাতিল করা হল তা আমাদের জানা নেই। উচ্চ উৎপাদনের বাগান হলেও বাগানের শ্রমিকদের জন্য বরাদ্দ জ্বালানি কাঠ শ্রমিকরা পাচ্ছেন না। ভারতীয় টি মজদুর ইউনিয়নের কালচিনি ব্লক সভাপতি রাজেশ বিশ্বকর্মা বলেন বাগানের শ্রমিকরা কোন অন্যায় আচরন করেননি। এরপরেও কেন নতুন ম্যানেজারকে সড়িয়ে দেওয়া হল বুঝতে পারছিনা। শ্রমিকরা তাঁদের ন্যায্য দাবি নিয়ে বাগানের ডেপুটি ম্যানেজার বা সহকারী ম্যানেজারদের কাছে গেলে তাঁরা ম্যানেজার নেই বলে তাঁদের পক্ষে দাবি মেটান সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দেন। এতে শ্রমিকদের দাবি মিটছে না। তাই আমরা স্থায়ী ম্যানেজারের দাবি জানাচ্ছি।’

ডুয়ার্স চা বাগান ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের বাগান কমিটির সম্পাদক বিজয় গুরুং বলেন, ‘বাগানে দীর্ঘ বছর ধরে কোন ডিগ্ৰিধারী চিকিৎসক নেই। হাসপাতালের পরিকাঠামো উন্নয়ন নেই। অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা সঠিক নেই। এছাড়াও দীর্ঘ দিন ধরে ফ্যাক্টারি রক্ষনাবেক্ষণ না হওয়ায় মেশিন বিকল হয়ে পড়ছে। শ্রমিক আবাসন মেরামত হচ্ছে না।অনেকেই ভবিষ্যনিধির টাকা পাচ্ছেন না। এসব সমস্যার স্থায়ী সমাধানের দাবি জানাচ্ছি আমরা।’

যদিও শ্রমিকদের দাবি ও অভিযোগ নিয়ে বাগান কর্তৃপক্ষ পক্ষের তরফে কেউ মন্তব্য করেননি। বাগানের ডেপুটি ম্যানেজার প্রনবকুমার সাহা বলেন, ‘এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করা তাঁর পক্ষে সম্ভব না। তবে বাগান সূত্রে জানা গিয়েছে নতুন ম্যানেজার কয়েক দিন আগে নিজেই পদত্যাগ করেছেন। নতুন করে ম্যানেজার নিয়োগ করা হবে বলে শ্রমিকদের আশ্বাস দিয়েছেন বাগান কর্তৃপক্ষের এক প্রতিনিধি।’