ভুটানে যেতে পারছেন না ভারতীয় ব্যবসায়ীরা, কড়া বার্তা সাংসদ জন বারলার

1067

জয়গাঁ: জয়গাঁ পরিদর্শনে এসে বুধবার ভুটানকে কড়া বার্তা দিলেন আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বারলা।

কয়েক মাস ধরে ভুটান প্রশাসন জয়গাঁ লাগোয়া ভুটানের ফুন্টশোলিং শহরে রেড জোন চালু করেছে। ফলে সেখানে ভারতের ব্যবসায়ী-শ্রমিকরা প্রবেশ করতে পারছেন না। কিন্তু নিজেদের ব্যবসায়ীক স্বার্থ সিদ্ধি করতে ভারতের সড়ক ব্যবহার করে নিজেদের বাণিজ্য সচল রেখেছে ভুটান প্রশাসন। বুধবার বিকেলে জয়গাঁ ১ নম্বর গ্ৰাম পঞ্চায়েতে বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সন্মেলনে প্রতিবেশী দেশ ভুটানের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুললেন সাংসদ জন বারলা।

- Advertisement -

এদিন তিনি বলেন, ভুটান প্রশাসনের এমন সিদ্ধান্তে জয়গাঁর ব্যবসায়ীরা নিজেদের বাণিজ্য ঠিক মতো করতে পারছেন না। পরিস্থিতির আদৌ কোনও পরিবর্তন হবে কিনা সে বিষয়ে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন সীমান্ত শহরের বণিক মহল। অনেকেই ব্যবসা বন্ধ করে অন্যত্র পাড়ি দিচ্ছেন। ভুটান প্রশাসন তাদের সিদ্ধান্ত প্রত্যহার করে ভুটান গেট দ্রুত না খুললে আগামী দিনে জয়গাঁ শহরের অস্তিত্ব সংকটে পড়তে পাড়েন বলে জানিয়েছেন সাংসদ। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে ও ভুটান প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করতে তিনি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ও বিদেশ মন্ত্রীর দ্বারস্থ হবেন বলে জানিয়েছেন সাংসদ।

এদিন জয়গাঁর ভুটান সীমান্তে গিয়ে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলেন সাংসদ। এলাকার ছোট, বড় ব্যবসায়ীরা ভুটানে গেট দীর্ঘ দিন ধরে বন্ধ রাখায় তাঁদের ব্যবসা তলানিতে ঠেকেছে বলে সাংসদকে অভিযোগ করেন। তাঁরা সাংসদকে বলেন, মূলত ভুটানের ক্রেতাদের ওপর নির্ভরশীল জয়গাঁর ছোট, বড় ব্যবসায়ী। সেক্ষেত্রে দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে ভুটান গেট বন্ধ থাকায় একদিকে যেমন সে দেশের নাগরিকরা জয়গাঁয় কেনাকাটা করতে আসতে পারছেন না‌, অন্যদিকে ভুটানের ওপর নির্ভরশীল শ্রমিকরা ভুটানে প্রবেশ করতে পারছেন না। এরফলে জয়গাঁর অর্থনীতি ভেঙ্গে পড়ছে বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের‌।

সাংসদ বলেন, ভারত সরকার সামাজিক, বাণিজ্যিক, সামরিক সব বিষয়ে মিত্র রাষ্ট্র ভুটানের পাশে দাঁড়ায়। কিন্তু ভারতীয় ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের সঙ্গে এমন আচরণ বরদাস্ত করা হবে না। সাংসদ নব নির্মিত এশিয়ান হাইওয়ে দিয়ে ভুটানে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা খতিয়ে দেখার পাশাপাশি শুল্ক দপ্তরের আধিকারিকদের সঙ্গে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা