পুজোর একমাস পরও বুড়িতোর্ষায় কাঠামো ভাসছে

281

সুভাষ বর্মন  শালকুমারহাট : দুর্গাপুজোর পর এক মাস কেটে গিয়েছে। অথচ পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ফালাকাটা-সোনাপুরগামী জাতীয় সড়কের বুড়িতোর্ষা নদীতে এখনও প্রতিমার কাঠামো ভাসছে। বুড়িতোর্ষা নদীর আশপাশের মেজবিল, গুদামটারি, উত্তর মেজবিল, শিশাগোড়, কালীপুর, বালাসুন্দর, পশ্চিম কাঁঠালবাড়ি সহ নানা এলাকায় দুর্গাপুজো হয়। এই নদীতে প্রায় সব প্রতিমাই বিসর্জন দেওযা হয়। একইভাবে কালীপুজোর পরও পার্শ্ববর্তী এলাকার বহু প্রতিমা বুড়িতোর্ষায় বিসর্জন দেওযা হয়। কিন্তু সেইসব প্রতিমার কাঠামো নদী থেকে তোলা হয়নি। আবার সম্প্রতি ছটপুজোর পর পলাশবাড়ির সনজয় নদীতে প্রচুর কলা গাছ, বেলপাতা, ফুল, প্লাস্টিক সামগ্রী ফেলে দেন ছটব্রতীরা। সেইসব সামগ্রীও নদীতে ভাসছে।

এই নদীগুলির দূষণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পরিবেশপ্রেমীরা। স্থানীয় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এদিকে বুড়িতোর্ষা নদীতে প্রতিমার কাঠামো পড়ে থাকায় বিপাকে পড়েছেন স্থানীয় মত্স্যজীবীরাও। স্থানীয় মত্স্যজীবী রঞ্জিত দাস বলেন, এমনিতেই এখন নদীর জল কমছে। মাছও কমতে শুরু করেছে। তার ওপর কাঠামোগুলি পড়ে থাকায় সেতুর নীচে জাল ফেলে মাছ ধরা যাচ্ছে না। অপর এক মত্স্যজীবী দুলাল দাসের কথায়, দিনদিন নদীতে দূষণ বাড়ছে। কিন্তু দূষণ প্রতিরোধে প্রশাসন উদ্যোগী হচ্ছে না।

- Advertisement -

এবছর দুর্গাপুজোর পর ফালাকাটার দোলং ও চরতোর্ষা নদী থেকে অনেকেই প্রতিমার কাঠামো তুলে নেয়। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম আলিপুরদুযার-১ ব্লকের বুড়িতোর্ষা নদী। প্রতি বছর বুড়িতোর্ষায় বিশ্বকর্মাপুজোর সময় কয়েকশো যানবাহন ধোয়া হয়। সম্প্রতি, এই নদীর জলে অ্যাম্বুলেন্স ধোয়ার ঘটনাও লক্ষ্য করা গিয়েছে। যানবাহনের মোবিল, তেল, কালি এবং চিকিত্সাবর্জ্য নদীর জলে মিশে যাওযায় এমনিতেই বুড়িতোর্ষা দূষণে জেরবার। এই পরিস্থিতিতে দুর্গাপুজোর এক মাস পরও প্রতিমার কাঠামো জলে পড়ে থাকায় বিভিন্ন মহলে ক্ষোভ ছড়িয়েছে। স্থানীয় পরিবেশপ্রেমী সংগঠন সবুজ পৃথিবী-র সম্পাদক সুজিত সরকার বলেন, বুড়িতোর্ষা নদীকে বাঁচাতে দ্রুত প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি সহ এলাকার মানুষকে এগিযে আসতে হবে। পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সৌরভ পাল বলেন, এভাবে নদীর দূষণের ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না। প্রশাসনের তরফে প্রযোজনীয় পদক্ষেপ করা হচ্ছে। আলিপুরদুযার-১ ব্লক মত্স্য দপ্তরের আধিকারিক দেবজ্যোতি ভট্টাচার্য বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।