দিনহাটা, ২৯ জুনঃ রক্তদান শিবির আয়োজন করে শিক্ষককে গুরুদক্ষিণা দিলেন প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা। এই অভিনব গুরুদক্ষিণার সাক্ষী থাকলেন দিনহাটা শহরের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। ওই ওয়ার্ডের গৃহশিক্ষক সিদ্ধেশ্বর সাহার প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা শুক্রবার রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেন।

দিনহাটা শহরের স্টেশন রোডের বাসিন্দা সিদ্ধেশ্বরবাবু ৩০ বছর ধরে গৃহশিক্ষকতা করছেন। তাঁর প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীদের অনেকেই এখন বিদেশে চাকরি করেন। অনেক দুস্থ পরিবারের ছাত্রছাত্রীদের তিনি বিনামূল্যে পড়ানোর পাশাপাশি তাঁদের পড়াশোনার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এমনকি, অনেকের থাকা-খাওয়ার সমস্যা হলেও তিনি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। পড়ুয়াদের অনেকের কাছে তিনি বাবা, আবার অনেকের কাছে দাদার মতো। বড়ো হওয়ার পর তাঁদের শিক্ষককে ভুলে যাননি সিদ্ধেশ্বরবাবুর ছাত্রছাত্রীরা। শুক্রবার ছিল সিদ্ধেশ্বরবাবুর ৫০তম জন্মদিন। সেই উপলক্ষ্যে এদিন সিদ্ধেশ্বরবাবুর প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা তাঁর বাসভবনে একটি রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেন। পাশাপাশি, তাঁরা এদিন দিনহাটা শহরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করেন। এদিন রক্তদান শিবিরে ও জন্মদিনের অনুষ্ঠানে দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত, প্রাক্তন শিক্ষক রামচন্দ্র সাহা সহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিন রক্তদান শিবিরে এসেছিলেন রাজর্ষি সরকার। তিনি বর্তমানে কৃষিবিদ্যা নিযে দেরাদুনে পড়াশোনা করছেন। রাজর্ষি বলেন, স্যারের জন্মদিনে রক্তদান শিবিরের পরিকল্পনার কথা শুনেই চলে এসেছি। কারণ এটা আমাদের কাছে একটা গুরুদক্ষিণার মতো ব্যাপার। মুম্বই থেকে আসা মাধব দত্তও একই কথা বললেন। আয়োজকদের মধ্যে প্রণব সাহা, জিতু মণ্ডল, প্রণব জোয়ারদাররা জানান, অনেকদিন ধরেই স্যারের জন্য কিছু করার ইচ্ছে ছিল তাঁদের। সেজন্য এদিন তাঁরা ৬০ জন রক্তদান করেছেন। তাঁদের মধ্যে পাঁচজন প্রাক্তন ছাত্রীও ছিলেন।

সিদ্ধেশ্বরবাবু বলেন, এই ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে আমার স্বপ্ন। ছোটোবেলা থেকেই কষ্টকে খুব কাছ থেকে দেখেছি। তাই কোনো ছাত্রছাত্রী টাকার অভাবে পড়াশোনা থেকে পিছিয়ে যাক, সেটা মেনে নিতে পারি না।