কার্যত লকডাউনে মিড ডে মিল নিতে হাজির পড়ুয়ারা, বিতর্কে স্কুল

90

আসানসোল: করোনা সংক্রামণ রুখতে রাজ্যে কার্যত লকডাউনের মধ্যে চলছে কড়া বিধিনিষেধ। স্কুল কলেজের মতো সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সরকারি বেসরকারি অফিসও বন্ধ। অপ্রয়োজনে বাইরে ঘোরাঘুরিতেও নিয়ন্ত্রণ আনা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে মি ডে মিলের খাদ্য সামগ্রী নিতে আসানসোলের রানিগঞ্জের সিয়ারশোল গার্লস হাইস্কুলে সোমবার হাজির পড়ুয়ারা। এই নিয়েই বিতর্ক শুরু হয়েছে। স্কুলে আসা পড়ুয়াদের দাবি, স্কুলের শিক্ষিকা তাঁদের ডেকেছেন। যদিও পড়ুয়াদের এই দাবি অস্বীকার করেন স্কুলের টিচার ইনচার্জ।

কার্যত লকডাউনের মধ্যে এদিন মিড ডে মিলের চাল নিতে পৌঁছে যায় অষ্টম শ্রেণীর কিছু পড়ুয়া। রানিগঞ্জের বেলবাঁধ এলাকা থেকে তাঁরা এদিন স্কুলে আসে। পড়ুয়াদের দাবি, স্কুলে চারদিন ধরে মিড ডে মিলের চাল দেওয়া হচ্ছে। তারা আগে আসতে পারেনি। এদিন স্কুলের শিক্ষিকাকে ফোন করলে তিনি সকালে আসতে বলেন। তবে, ছাত্রীদের এই দাবিকে অস্বীকার করেছেন স্কুলের টিচার ইনচার্জ শুক্লা চক্রবর্তী। তিনি বলেন, ‘অভিভাবকদের চাল দেওয়া হচ্ছে গত চারদিন ধরে। এদিন আচমকাই পড়ুয়ারা স্কুলে চলে আসে। সবাইকে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা করা হয়। রানিগঞ্জের পাঞ্জাবি মোড় ফাঁড়ির পুলিশের সাহায্য নিয়ে টোটো করে বাড়ি তাদেরকে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছি।‘ পড়ুয়ারা জানিয়েছে, বাড়িতে অভিভাবকরা কাজে ব্যস্ত থাকায় নিজেরাই চাল নিতে চলে এসেছে।

- Advertisement -