পুজোর আগেই ফালাকাটায় চালু হচ্ছে সুফল বাংলা স্টল

133

ফালাকাটা: পদ্মার ইলিশ, উত্তর দিনাজপুরের তোলাইপাঞ্জি, মুর্শিদাবাদের নলেন গুড়, পাঞ্জিপাড়ার হলুদ সহ টাটকা সবজি এখন থেকে ন্যায্যমূল্যে বাড়ির কাছেই পাবেন ফালাকাটাবাসী। কারণ আলিপুরদুয়ার জেলা সদরের পর গুরুত্বের নিরিখে এবার ফালাকাটা কিষান মান্ডিতে চালু হচ্ছে রাজ্য সরকারের সুফল বাংলা স্টল। দুর্গাপুজোর আগেই এই স্টল চালু হতে চলেছে। স্টল তৈরির অধিকাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন আরএমসির আধিকারিকরা। এই স্টল চালু হলে একদিকে কৃষকদের কৃষিপণ্য ন্যায্যমূল্যে বিক্রি হবে। ফড়েদের দৌরাত্ম্য কমবে। আবার সাধারণ বাসিন্দারাও চাহিদা অনুযায়ী ন্যায্যমূল্যে টাটকা পণ্য ওই স্টল থেকে কেনার সুযোগ পাবেন। ভোজনরসিক থেকে নানা মহলের স্থানীয় মানুষ এই খবরে খুশি।

রেগুলেটেড মার্কেট কমিটি (আরএমসি)-র আলিপুরদুয়ার জেলা আধিকারিক সুব্রতকুমার দে বলেন, ‘কিষান মান্ডিতে সুফল বাংলা স্টল চালু হচ্ছে। এজন্য কাজ চলছে।’ এই কিষান মান্ডি দেখভালের দায়িত্বে থাকা আরএমসির আধিকারিক পীযূষকান্তি গুহ বলেন, ‘পুজোর আগেই এই স্টল চালু হবে। এটা হলে কৃষকরা কৃষিপণ্যের ন্যায্যমূল্য পাবেন। আবার সাধারণ ক্রেতারাও টাটকা সবজি অল্প দামে কেনার সুযোগ পাবেন। তাই আমাদের ট্যাগ লাইন দেওয়া হয়েছে ‘তাজা সবজি রান্না ঘরে’। সবজি ছাড়াও স্থানীয় মানুষের চাহিদা অনুযায়ী অন্যান্য সামগ্রীর জোগানও থাকবে এই স্টলে।’

- Advertisement -

এতদিন থেকে আলিপুরদুয়ার জেলা সদরে চালু রয়েছে সুফল বাংলা স্টল। সম্প্রতি ফালাকাটা পুরসভা হয়েছে। এছাড়া ফালাকাটা কিষান মান্ডিও রাজ্যের মধ্যে সেরা স্থানে রয়েছে। এজন্য রাজ্য সরকারের তরফে জেলার দ্বিতীয় সুফল বাংলা স্টলের জন্য ফালাকাটাকে বেছে নেওয়া হয়েছে। আরএমসি সূত্রে জানা গিয়েছে, কৃষকদের ন্যায্যমূল্য পাইয়ে দেওয়াও এই স্টল তৈরির অন্যতম উদ্দেশ্যে। এই কিষান মান্ডিতেও এখন ফড়েদের দৌরাত্ম্য বেড়েছে। তাই অনেক সময় কৃষিপণ্যের সঠিক দাম পাচ্ছেন না চাষিরা। এখানে কোনও সবজি প্রতি কেজি ২০ টাকা পাইকারি দরে বিক্রি হলে সেটাই খোলা বাজারে ৫০-৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। তাই স্টল চালু হলে ফড়েদের দাপট কমবে। এছাড়া শহরবাসীর ইচ্ছে হলেও বেশি দাম দিয়ে অনেক সময় পদ্মার ইলিশ খেতে পারেন না। ওইসব ভোজনরসিকদের চাহিদাও এবার পূরণ হবে। এই স্টলে তোলাইপাঞ্জি, নলেন গুড়, খাঁটি আচার, কড়কনাথ মুরগির মাংস, হরিণঘাটার মাদার ডিয়ারি দুধ থেকে শুরু করে অনেক কিছুই ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করা হবে। আবার কখনও আলু, পেয়াঁজের মতো নিত্য খাদ্য সামগ্রীর কালোবাজারের জন্য মূল্য বৃদ্ধি পায়। সেক্ষেত্রেও প্রশাসনের নজরদারির মাধ্যমে এই সুফল বাংলা স্টলে ন্যায্য মূল্যে আলু, পেয়াঁজ বিক্রি হবে। কিষান মান্ডিতে দুটি ঘর নিয়ে এই স্টল তৈরির অধিকাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন পরিকাঠামোগত কিছু কাজ হলেই স্টল চালু করা হবে বলে জানা গিয়েছে। স্থানীয় স্কুল শিক্ষক উজ্জ্বল সরকার বলেন, ‘এটা খুশির খবর। এই স্টল চালু হলে আর জেলা সদরে যেতে হবে না।’