আত্মঘাতী ভাগ্নি, ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার মামা ও দাদু

79

রায়গঞ্জ: মামার নির্যাতনে অপমানিত হয়ে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হল ধর্ষিতা ভাগ্নি। রবিবার সকালে ইটাহার থানার সুরুন ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের ডামডোলিয়া বাজিতপুর গ্রামের বাড়ি থেকে দশ বছর বয়সী ভাগ্নির ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত মামা হাসান আলি ও তাঁর বাবাকে আবু শেখকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ইটাহার থানায় অভিযুক্ত মামার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছে মৃতার পরিবারের তরফে। শনিবারর রাতে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ।

জানা গিয়েছে, মৃতার মা ও বাবা ভিন রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিক। গত শুক্রবার বিকেলে মেলা দেখতে ডামডোলিয়ায় মামার বাড়িতে এসেছিল ওই কিশোরী। এরপরই মাঝপথে মামা তুলে জঙ্গলে নিয়ে ভাগ্নিকে পাশবিক নির্যাতন করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা অসুস্থ কিশোরীকে উদ্ধার করে মামা বাড়িতে নিয়ে আসে। গতকাল শোবার ঘরে নিজের ওড়নায় ফাঁস আত্মহত্যার চেষ্টা করে ওই ছাত্রী। তবে, জ্ঞান ফিরলে সে সমস্ত বিষয় জানায় এরপর বিকেলে সালিশি সভা হয়। আর সেই সভা চলাকালীন অপমানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে ছাত্রী। ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্তের বাবাকে গ্রেপ্তার করে অন্যদিকে, মূল অভিযুক্ত হাসান আলিকে বিহারের আবাদপুর থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

- Advertisement -

মৃতের দাদু বলেন, ‘আমার নাতনি মেলা দেখতে ডামাডোলের বাড়িতে আসছিল। কিন্তু  সাইকেলে করে তুলে নিয়ে গিয়ে মাটিয়ার একটি মাঠে ধর্ষণ করে। পাশাপাশি খুন করার হুমকি দেয়। লজ্জায়, ভয়ে ফাঁসি দিয়ে আত্মঘাতী হয় সে।‘

রায়গঞ্জ পুলিশ সুপার সুমিত কুমার বলেন, ‘ঘটনায় দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সমস্ত ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে।‘ ইটাহার থানার পুলিশ আধিকারিক বলেন, ‘অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।‘

স্থানীয় তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য সলিমুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘পুলিশকে সমস্ত ঘটনা বলা হয়েছে। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।‘ পাজল গ্রাম সংসদের তৃণমূলের সদস্য শফিকুল হক বলেন, ‘অভিযুক্ত ওই যুবকের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। এর আগেও একাধিক ঘটনা ঘটিয়েছে। পুলিশ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুক।‘