স্বাধীনতা পেলে আরও চমক দেবে সূর্য

অরিন্দম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : স্কাই ইজ দ্য লিমিট ফর সূর্য!

ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট যদি ওকে নিজের মতো ব্যাট করার স্বাধীনতা দেয়, নিয়মিত তিন নম্বরে ব্যাট করার সুযোগ পায়, তাহলে ক্রিকেট সমাজকে আরও চমক দেবে সূর্যকুমার যাদব। আগ্রাসন ও আত্মবিশ্বাস ওর ইউএসপি।

- Advertisement -

বক্তার নাম সুলক্ষণ কুলকার্নি। জাতীয় দলের হয়ে কখনও না খেললেও ঘরোয়া ক্রিকেটে, বিশেষ করে মুম্বই ক্রিকেটমহলে রীতিমতো পরিচিত নাম সুলক্ষণ। বছর আটেক আগে মুম্বইয়ের কোচ থাকার সময়ই তিনি প্রথম দেখেছিলেন সূর্যকুমারকে। আর প্রথম দর্শনে গত রাতের ম্যান অফ দ্য ম্যাচের ব্যাট হাতে আগ্রাসন, সব ডেলিভারিকে বাউন্ডারিতে পাঠানোর চেষ্টা, অদ্ভুত ধরনের স্ট্রোক খেলার প্রবণতা চমকে দিয়েছিল তাঁকে।

মাঝে অনেকটা সময় পার হয়ে গিয়েছে। সেদিনের সূর্য মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে আইপিএলে ধারাবাহিকভাবে সফল হওয়ার পর এখন কোহলির সংসারে ঢুকে পড়েছেন। নটরাজ স্টাইলে গত রাতে নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে জোফ্রা আর্চারকে ফাইন লেগের উপর দিয়ে ছক্কা মেরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রান করা শুরু করেছেন। স্বাভাবিকভাবেই সূর্যকে নিয়ে হইচচই শুরু হয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটে।

মুম্বই ক্রিকেটমহলে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, সূর্যকুমারের আদতে কোনও কোচ নেই। তিনি নিজস্ব স্টাইলে বড়ো হয়েছেন। সময়ে সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজের ক্রিকেট স্কিলে শান দিয়েছেন। তৈরি করেছেন পরিণতিবোধ। আর এগিয়ে চলার সময়ে সুলক্ষণ কুলকার্নির থেকে পেয়েছেন আগামীর দিশা। মুম্বইয়ে সুলক্ষণ কুলকার্নির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি সূর্যকে নিয়ে আগামীর পূর্বাভাসও করলেন। বলে দিলেন, বেশ কয়েক বছর আগের তুলনায় এখনকার সূর্য অনেক পরিণত। ক্রিকেটবোধ সাংঘাতিক। আত্মবিশ্বাস চরম। চাপ সামলাতে ভালোই জানে। সূর্য যদি ভারতীয় দলে নিজের মতো খেলার স্বাধীনতা পায়, অনেক রেকর্ড ভেঙে দেবে।

সুলক্ষণ কুলর্নির মতোই মুম্বই রনজি দলের বর্তমান কোচ রমেশ পওয়ারও সূর্যর তেজে মুগ্ধ। উত্তরবঙ্গ সংবাদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে তাঁর মনে পড়ে গেল একটি ঘটনা। রমেশের কথায়, মাস খানেক আগে ভারতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার প্রবল সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল। কিন্তু তখন সুযোগ পায়নি সূর্য। কিছুটা হতাশ হয়েছিল। কিন্তু ভেঙে পড়েনি। বরং অনুশীলনের সময় আরও বাড়িয়ে দিয়েছিল। আর আমায় বলেছিল, যেদিন সুযোগ পাব, সেদিন প্রমাণ করে দেব আগে আমায় দলে না নেওয়ার সিদ্ধান্ত ভুল ছিল।

বিরাট কোহলি ভরসা দিয়েছিলেন গতকালের ম্যাচে ব্যাট করতে নামার আগে। রোহিত শর্মা পিঠ চাপড়ে বলেছিলেন, প্রমাণ করে দেখানোর দিন। হিটম্যান ফেরার পর মাঠে নেমে আর্চারকে ছক্কা মেরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম রান করার পর বিসিসিআইয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শার্দুল ঠাকুরকে সূর্য বলেন, দেশের হয়ে খেলা, ম্যাচ জেতানো আমার কাছে স্বপ্ন ছিল। সেই স্বপ্নপূরণ হয়েছে। অথচ ব্যাট করতে নামার সময় বেশ টেনশনে ছিলাম। একটু পেট গুড়গুড়ও করছিল। কিন্তু নিজের উপর আস্থাও ছিল।

জোফ্রা আর্চারের মতো পেসারকে প্রথম বলেই ছক্কা মারার ব্যাপারে আইপিএল অভিজ্ঞতা কাজে লেগেছে বলে জানিয়েছেন সূর্য। তাঁর কথায়, আইপিএলে আর্চারের বিরুদ্ধে খেলেছি আগে। ওর বোলিংয়ের ভিডিও দেখেছি। নতুন ব্যাটসম্যানকে শর্ট বল করে চমকে দেওয়ার প্রবণতা রয়েছে ওর। আমি সেটা জানতাম। তাই শর্ট বল এলে কোন শট খেলব, ভেবে রেখেছিলাম।