পবন হংস শ্মশানে শেষকৃত্য সুশান্তের

502

মুম্বই: মুম্বইয়ের ভিলে পার্লের পবন হংস শ্মশানে শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে সুশান্ত সিং রাজপুতের। সোমবার বিকেল ৪টা নাগাদ সুশান্তের দেহ হাসপাতাল থেকে শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়। করোনা পরিস্থিতিতে মাত্র ২০ জনকেই সুশান্তের শেষকৃত্যে হাজির থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এদিন সুশান্তের শেষকৃত্যে উপস্থিত রয়েছেন সুশান্তের বাবা সহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। রয়েছেন শ্রদ্ধা কাপুর, রণদীপ হুড্ডা, রণবীর শোরে, কৃতি শ্যানন, কাস্টিং ডিরেক্টর মুকেশ ছাবরা সহ আরও অনেকেই। সুশান্তকে শেষবারের জন্য দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন তাঁর বান্ধবী রীহা চক্রবর্তীও।

- Advertisement -

আরও পড়ুন: কেন আত্মঘাতী সুশান্ত সিং রাজপুত, উত্তর খুঁজছে সবাই

রবিবার মুম্বইয়ের বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয় বলিউডের জনপ্রিয় এই অভিনেতার। বেশ কিছুদিন ধরেই তিনি মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে অভিনেতার বাড়ির পরিচারক থানায় ফোন করে খবর দেন। এরপর ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ। সুশান্ত আত্মহত্যা করেছেন বলে জানায় পুলিশ। তবে ঠিক কী কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন তা এখনও পর্যন্ত জানা যায়নি।

১৯৮৬ সালের পটনায় জন্ম সুশান্ত সিংহ রাজপুতের। পরবর্তিতে তাঁর পরিবার দিল্লিতে চলে আসে। সর্বভারতীয় পরীক্ষা এআইইইই-তে সপ্তম স্থান অধিকার করেন তিনি। দিল্লি কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়েও ভর্তি হন তিনি। সেই সময় থেকেই থিয়েটারের প্রতি আগ্রহ তৈরি হয়। থিয়েটারে অভিনয়ও শুরপ করেন। সে কারণেই পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি। অভিনয়ের তাগিদে এরপর পাড়ি দেন মুম্বইয়ে।

আরও পড়ুন: সুশান্তের মৃত্যুতে মুষড়ে পড়েছেন ধোনি

২০০৮ সালে একতা কপূরের প্রযোজনায় ‘কিস দেশ মে হ্যাঁ মেরা দিল’ সিরিয়ালে প্রথম বড়পর্দায় দেখা যায় তাঁকে। পরের বছরই ‘পবিত্র রিস্তা’ সিরিয়ালে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। এই সিরিয়ালে অভিনয় করতে করতে বেশ কিছু রিয়্যালিটি শোয়ে অংশ নেন তিনি।

অভিষেক কপূরের ‘কাই পো ছে’ তাঁর প্রথম ছবি। ২০১৩-তে মুক্তি পাওয়া ‘কাই পো ছে’-তে সুশান্তের অভিনয়ের প্রশংসা কুড়োয়। এরপর ‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স’, ‘পিকে’, ‘ডিটেক্টিভ ব্যোমকেশ বক্সী’, ‘কেদারানাথ’-র মতো ছবিতে নিজের অভিনয় দক্ষতা ছাপ রাখেন তিনি। মহেন্দ্র সিংহ ধোনির বায়োপিক ‘এমএস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’-তে তাঁর অভিনয় সাড়া ফেলে দেয়। শ্রদ্ধা কপুরের বিপরীতে ‘ছিচোরে’-তে বড়পর্দায় শেষ দেখা গিয়েছিল তাঁকে। তবে তাঁর শেষ নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া ‘ড্রাইভ’।