আত্মহত্যায় প্ররোচনা! বান্ধবী রিয়ার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের সুশান্তের বাবার

অনলাইন ডেস্ক: সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় নয়া মোড়। এবার সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করলেন সুশান্তের বাবা। সুশান্তের বাবা কেকে সিং রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে পটনার রাজীবনগর থানায় রিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছেন। এফআইআরের সেই কপি আদালতে পৌঁছে গিয়েছে।

রিয়ার বিরুদ্ধে চক্রান্ত, সুশান্তের থেকে টাকা নেওয়া এবং তাঁকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ এনেছেন সুশান্তের বাবা। ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৪১/২০ ধারায় তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। পটনা সেন্ট্রাল জোনের আইজি সঞ্জয় সিং বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। কেকে সিং জানান, পটনা পুলিশ খুব শীঘ্রই মুম্বইয়ের ডেপুটি পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে দেখা করবে।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, ১৪ জুন মুম্বইয়ের বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে সুশান্তের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। তাঁর মৃত্যুর একসপ্তাহ আগে অবধি রিয়া সুশান্তের বান্দ্রার ফ্ল্যাটেই থাকতেন। তবে রিয়া হঠাৎই ফ্ল্যাট ছেড়ে বেরিয়ে অন্য জায়গায় থাকতে শুরু করেন। যা নিয়েই তৈরি হয়েছে রহস্য। ইতিমধ্যেই রিয়াকে বান্দ্রা থানায় ডেকে পাঠিয়ে তাঁর বয়ান রেকর্ড করেছে পুলিশ। পুলিশকর্তারা টানা সাত ঘন্টা তাঁকে জেরা করেছিলেন রিয়াকে। রিয়া পুলিশকে জানান, সুশান্তের সঙ্গে তাঁর ঝামেলা হয়েছিল। রিয়ার দাবি, সুশান্ত তাঁকে যশরাজ ফিল্মসের সঙ্গে সব চুক্তি শেষ কথা বলেছিলেন। সুশান্ত নিজেও যশরাজের সঙ্গে সমস্ত চুক্তি থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন।

সুশান্তের মৃত্যুর ঘটনায় মুম্বই পুলিশ এখনও পর্যন্ত এই মামলায় প্রায় ৪০ জনকে জেরা করেছে। এদের মধ্যে পরিচালক প্রযোজক সঞ্জয় লীলা বনশালী, চলচ্চিত্র নির্মাতা আদিত্য চোপড়া, পরিচালক মুকেশ ছাবড়া, চলচ্চিত্র নির্মাতা শেখর কাপুর, চলচ্চিত্র সমালোচক রাজীব মাসন্দ প্রমুখ রয়েছেন। তবে এত জনকে জিজ্ঞাসাবাদের পরেও সুশান্তর মৃত্যু উন্মোচন করতে পারেনি পুলিশ। আজও এই মামলায় ধর্মা প্রোডাকশনের সিইও অপূর্ব মেহতাকে বয়ান রেকর্ড করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, ১৯৮৬ সালের পটনায় জন্মগ্রহণ করেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত। পরবর্তীকালে তাঁর পরিবার দিল্লিতে চলে আসে।  ২০০৮ সালে একতা কপূরের প্রযোজনায় ‘কিস দেশ মে হ্যাঁ মেরা দিল’ সিরিয়ালে প্রথম বড়পর্দায় দেখা যায় তাঁকে। পরের বছরই ‘পবিত্র রিস্তা’ সিরিয়ালে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। এই সিরিয়ালে অভিনয় করতে করতে বেশ কিছু রিয়্যালিটি শোয়ে অংশ নেন তিনি।

অভিষেক কপূরের ‘কাই পো ছে’ তাঁর প্রথম ছবি। ২০১৩-তে মুক্তি পাওয়া ‘কাই পো ছে’-তে সুশান্তের অভিনয়ের প্রশংসা কুড়োয়। এরপর ‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স’, ‘পিকে’, ‘ডিটেক্টিভ ব্যোমকেশ বক্সী’, ‘কেদারানাথ’-র মতো ছবিতে নিজের অভিনয় দক্ষতা ছাপ রাখেন তিনি। মহেন্দ্র সিংহ ধোনির বায়োপিক ‘এমএস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’-তে তাঁর অভিনয় সাড়া ফেলে দেয়।

শ্রদ্ধা কপুরের বিপরীতে ‘ছিচোরে’-তে বড়পর্দায় শেষ দেখা গিয়েছিল তাঁকে। নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া ‘ড্রাইভ’-এ তাঁকে দেখা গিয়েছে। ডিজনি+হটস্টারে শুক্রবার মুক্তি পাওয়া তাঁর শেষ সিনেমা ‘দিল বেচারা’ সমালোচকদের কাছ থেকে প্রশংসা কুড়িয়েছে।