ভিন রাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের লালারস সংগ্রহ, টেস্ট রিপোর্ট নেগেটিভ থাকায় মিলল ছুটি

259

মোথাবাড়ি, ৫ মেঃ মোথাবাড়ি এলাকায় ভিন রাজ্য ফেরত সমস্ত শ্রমিকদের লালারস সংগ্রহ করে করোনা ভাইরাসের টেস্ট করা হল। এছাড়াও মোথাবাড়ি কোয়ারিন্টন সেন্টার থেকে ছেড়ে দেওয়া হল ২১ জন পরিযায়ী শ্রমিককে। তাঁদের প্রত্যেকের টেস্টে নেগেটিভ রিপোর্ট আসার জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এদিন কোয়ারান্টাইনে থাকা ৩৭ ভিন রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিক ছাড়াও মোট ১০০ জনের লালারস পরীক্ষা করা হয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, এখনও পর্যন্ত মোথাবাড়ি কোয়ারান্টাইন সেন্টার থেকে মোট ৯৪ জনের করোনা টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

কালিয়াচক ২ নম্বর ব্লকের ম্যালেরিয়া টেকনিক্যাল সুপারভাইজার তৌসিফ কামাল জানিয়েছেন, ওয়ারিংটন সেন্টারে থাকা ২১ জন ভিন রাজ্যের থেকে আসা শ্রমিকদের নেগেটিভ আসার জন্য তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সাম্প্রতিককালে ভিন রাজ্য থেকে আসা প্রায় পরিযায়ী শ্রমিকের লালারস সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যেই রিপোর্ট চলে আসবে। এদিন মােথাবাড়িতে সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষার জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। মঙ্গলবার কোয়ারান্টাইন থাকা সমস্ত শ্রমিকদের ছেড়ে দেওয়া হয়। রিপোর্টে নেগেটিভ থাকায় স্বস্তিতে তাঁদের পরিবারও।

- Advertisement -

এদিন কোয়ারান্টাইন থেকে ছাড়া পেয়ে খুশি রহিম শেখ, রবিউল শেখরা। রহিমের বাড়ি রথবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ছবিল পাড়া এলাকায়। ভিন রাজ্যে কাজ করে তিনি ফিরেছিলেন। তারপর থেকেই তিনি কোয়ারান্টাইন সেন্টারে ছিলেন। অন্যদিকে, রবিউলের বাড়ি ঝাড়খন্ডের সাহেবগঞ্জে। তিনি মোথবাড়িতে তাঁর শ্বশুবাড়িতে এসেছিলেন। এলাকাবাসীর চাপে তাঁকে কোয়ারান্টাইন সেন্টারে পাঠানো হয়। এদিন তিনিও ছাড়া পান। রহিম ও রবিউলদের বক্তব্য, প্রথমদিকে সেন্টারে তাঁদের সঙ্গে সঠিক ব্যবহার করা না হলেও, শেষের দিকে সবকিছু খুব সুন্দর ভাবে চলছিল। ভালো খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে নজরদারিতেও কমতি ছিল না। ব্লকের বিভিন্ন আধিকারিক থেকে শুরু করে চিকিৎসকরাও খুব ভালো ব্যবহার করেছেন। ব্লকের বিডিও, জয়েন্ট বিডিও তাঁদের খোঁজ নিতে এসেছিলেন।

জেলা মূখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ভূষণ চক্রবর্তী জানান, এদিন বিকেল পর্যন্ত নতুন করে কোনও করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়নি। প্রতিটি কোয়ারান্টাইন সেন্টারে লালারস সংগ্রহের কাজ চলছে। নমুনা মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। পরদিনই টেস্টের রিপোর্ট সংশ্লিষ্ট কোয়ারান্টাইন সেন্টারে পৌঁছে যাচ্ছে।