অস্ট্রেলিয়ার স্কোয়াডে ভারতীয় ট্যাক্সিচালকের ছেলে

সিডনি: অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলে ডাক পেয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত তনভীর সাঙ্ঘা। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে অ্যাওয়ে টি২০ সিরিজের স্কোয়াডে আছেন বছর উনিশের এই লেগস্পিনার।

তনভীরের বাবা জোগা সিডনিতে ট্যাক্সি চালান। ১৯৯৭ সালে জলন্ধর সংলগ্ন রহিমপুর কালা সাঙ্ঘিয়ান থেকে এদেশে আসেন তিনি। চলতি মরশুমে বিগব্যাশ লিগে ১৩ ম্যাচে ২১ উইকেট নিয়ে নজর কেড়েছেন তনভীর। এই পারফরমেন্সের জোরেই জাতীয় দলের টিকিট পেলেন। গুরিন্দর সান্ধুর পর ফের কোনও ভারতীয় বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলে ডাক পেয়েছেন।

- Advertisement -

ছেলে ক্রিকেটার হলেও ভারতে থাকার সময় ক্রিকেট নিয়ে আগ্রহ ছিল না জোগার। তাঁর কথায়, ভারতে থাকাকালীন আমি কবাডি, কুস্তি ও ভলিবল খেললেও ক্রিকেট দেখতাম না। এখানে আসার পর শীতের সময় আমি কুস্তি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছি। তনভীরও সেই প্রতিযোগিতার জুনিয়ার বিভাগে লড়েছে। তবে ১০ বছর বয়স থেকে ছেলে ক্রিকেট খেলছে বলে তিনি জানান। চোট এড়াতে বাবার পরামর্শেই পেস ছেড়ে স্পিন বোলিং শুরু করেন তনভীর।

অজি ক্রিকেটে অবশ্য তনভীর নতুন মুখ নয়। গতবছর জুনিয়ার বিশ্বকাপে অজি স্কোয়াডে সেরা বোলার ছিলেন তিনি। ৬ ম্যাচে নিয়েছিলেন ১৫ উইকেট। তারপরেই সিডনি থান্ডারের হয়ে বিগব্যাশে খেলার সুযোগ পান। জাতীয় দলে ডাক পাওয়া নিয়ে তনভীরের বক্তব্য, আমি এত দ্রুত জাতীয় দলে ডাক পাওয়ার আশা করনি। ফলে বিষয়টি বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। তবে ডাক পাওয়ার পর আমি খুশিতে পাগল হয়ে যাচ্ছিলাম।
ওয়া ভাইদের প্রাক্তন স্কুলে পড়তেন তনভীরও। তবে সেটি স্পোর্টস স্কুল না। তাই অনেকেই তাঁকে ভালোভাবে অনুশীলনের সুযোগের জন্য অন্য স্কুলে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু তনভীরের কথায়, আমার কাছে ক্রিকেট সব সময়ের বিষয় নয়। তাই আমি সাধারণ স্কুলে পড়তেই স্বচ্ছন্দ্য ছিলাম। এতে আমি প্রয়োজনীয় বিশ্রাম পেতাম। ফলে ক্রিকেটে ঠিকমতো মন দিতে পারতাম।

ছেলেকে ক্রিকেটার করার পেছনে লড়াই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি ওকে খেলতে নিয়ে যেতাম, বাড়িও পৌঁছে দিতাম। এটা করতে গিয়ে আমাকে অতিরিক্ত সময় ট্যাক্সি চালাতে হত। বলের পাশাপাশি ছেলে ভালো ব্যাটিংও করে বলে তাঁর দাবি। জানালেন, তনভীরের ব্যাটের হাতও ভালো। জুনিয়ার বিশ্বকাপে পাঁচবার ব্যাট করেছে। সেখানে ওর স্ট্রাইক রেট ৮৫.২৬ ছিল।