বাংলাদেশ ‘জেহাদিস্তান’, সংখ্যালঘু নির্যাতনের দায় হাসিনার: তসলিমা

299

ঢাকা ও কলকাতা: বর্তমান বাংলাদেশকে ‘জেহাদিস্তান’ বলে কটাক্ষ করলেন তসলিমা নাসরিন। পাশাপাশি বাংলাদেশের পুজোমণ্ডপে হামলা ও সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে শেখ হাসিনা সরকারকেই কাঠগড়ায় তুলেছেন তসলিমা।

শনিবার লেখিকা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেন। সেখানে তসলিমা লিখেছেন, ‘আফগানিস্তান, পাকিস্তান, জেহাদিস্তান। জেহাদিস্তানের অফিসিয়াল নাম এখনও অবশ্য বাংলাদেশ। এই তিন স্তান সমানে সমান পাল্লা দিয়ে চলছে। যুগ যুগ ধরে পরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু নির্যাতন চলছে জেহাদিস্তানে। গত তিনদিনে এই নির্যাতন ভয়াবহ আকার নিয়েছে। এর দায়ভার সরকারের। সম্পূর্ণ দোষ হাসিনার। তিনিই দেশে জেহাদি পয়দা করেছেন। তিনিই দেশে সংখ্যালঘুর নিরাপত্তা নষ্ট করেছেন। বিএনপি এবং জাতীয় পার্টির শাসনকালেও এত সংখ্যালঘু নির্যাতন হয়নি, যত হয়েছে হাসিনার আওয়ামি লিগের আমলে। মনে হয়, জামাতে ইসলামি ক্ষমতায় থাকলেও এত হিন্দু নির্যাতন হত না।’

- Advertisement -

উল্লেখ্য, কুমিল্লায় কোরান অবমাননার অভিযোগে উত্তপ্ত বাংলাদেশ। মণ্ডপে হামলা চালানোর পাশাপাশি চলছে সংখ্যালঘু নির্যাতন। যদিও ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে শেখ হাসিনা সরকার। তবে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনে চিন্তিত পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দারা।

কোরান অবমাননার অভিযোগ তুলে বুধবার দিনের বেলা কুমিল্লার বেশ কয়েকটি পূজা মণ্ডপে হামলা চালানো হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় উস্কানির জেরে বিষয়টি আরও জটিল আকার নেয়। সেদিন রাতে নোয়াখালির হাতিয়া এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালিতে মন্দিরে হামলা চালায় উন্মত্ত জনতা। বুধবার রাতের হামলায় চারজনের মৃত্যু হয় বলে সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর।

সেই ঘটনার পর থেকে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন চলছে। শুক্রবার অর্থাৎ বিজয়া দশমীতে নোয়াখালি জেলার ইসকন মন্দিরে হামলা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ। পাশাপাশি পার্থ দাস নামে মন্দিরের এক সদস্যকে খুন করা হয়েছে। হামলার বিষয়টি টুইটে জানিয়েছে ইসকন কর্তৃপক্ষ। হাসিনা সরকারের কাছে তারা সংখ্যালঘুদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দেওয়া ও হামলাকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানিয়েছে।