অমিল কাঁচা চা পাতার ন্যায্য মূল্য, আন্দোলের হুঁশিয়ারি চা চাষিদের

180
প্রতীকী ছবি

জলপাইগুড়ি: কাঁচা চা পাতার ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত জলপাইগুড়ি জেলার প্রায় ২৫ হাজার ক্ষুদ্র চাষি। ঘটনা প্রসঙ্গে টি বোর্ডের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে ধরেছেন একাধিক চা চাষি সমিতির প্রতিনিধিরা। কাঁচা চা পাতার নায্য মূল্যের দাবি জানিয়ে মঙ্গলবার জলপাইগুড়ি জেলা চা চাষি সমিতি, উত্তরবঙ্গ ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চা চাষি সমিতি, আইটিপিএ নিউ অ্যান্ড স্মল টি গার্ডেন ফোরাম এবং ইনাইটেড ফোরাম অফ স্মল টি গ্রোয়ার্স অ্যাসোসিয়েনের প্রতিনিধিরা টি বোর্ডের ডেপুটি ডিরেক্টর সুবীর হাজরার সঙ্গে দেখা করেন। চা চাষিদের সমস্যার কথা জানানোর পাশাপাশি স্মারকলিপিও প্রদান করা হয় এদিন।

জলপাইগুড়ি জেলা ক্ষুদ্র চা চাষি সমিতির সম্পাদক বিজয় গোপাল চক্রবর্তী বলেন, কাঁচা চা পাতার ন্যায্য মূল্য না মিললে জলপাইগুড়ি টি বোর্ডের অফিসে তালা ঝোলানো হবে আগামীতে। শুধু তালা ঝোলানো নয় রাস্তায় কাঁচা চা পাতা ঢেলে পথ অবরোধও করা হবে। বিজয়বাবুর অভিযোগ, টি বোর্ড মান্থলি বেঞ্চমার্ক প্রাইস ঘোষণা করছে না। অথচ টি বোর্ডের ওযেবসাইটে জুলাই মাসে কাঁচা চা পাতা কেজি প্রতি দাম ২১ টাকা ধার্য্য করা হয়েছে। বটলিফ ফ্যাক্টরির মালিকরা কাঁচা চা পাতা কিনছেন কেজি প্রতি ১৫ টাকা। অথচ প্রতি কেজি চা পাতার উৎপাদন খরচ ২০ টাকা।

- Advertisement -

টি বোর্ডের ডেপুটি ডিরেক্টর সুবীর হাজরা জানিয়েছেন, বটলিফ ফ্যাক্টরির প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান করা হবে দ্রুত।