মেখলিগঞ্জে বাড়ছে বেআইনি কাঠ পাচারের দৌরাত্ম্য

110

জামালদহ: কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকায় বেআইনি কাঠ পাচারের দৌরাত্ম্য বেড়ে চলেছে। সোমবার রাতে পুলিশ ও বন দপ্তর অভিযান চালিয়ে জামালদহ বাজারের সামনে শ্মশানঘাট এলাকা থেকে কয়েক লক্ষ টাকার সেগুন কাঠ উদ্ধার করে। শুধু স্থলপথই নয়, এবার কৌশল বদলে পাচারকারীরা জলপথ ব্যবহার করেও নিজেদের কারবার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ। বেআইনি কাঠের কারবার বন্ধ করতে পুলিশ, প্রশাসন ও বন দপ্তরকে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দা ও পরিবেশপ্রেমীরা।

জানা গিয়েছে, জামালদহ বনাঞ্চল ঘেঁষে বয়ে চলেছে সুটুঙ্গা নদী। বর্ষার সময় নদীর অবস্থা বুঝে কলার ভেলায় ভাসিয়ে কাঠ পাচার হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন মেখলিগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির বন ও ভূমি কর্মাধ্যক্ষ জ্যোতিষ রায়। তাঁর দাবি, রাতের অন্ধকারে নদীপথে কলার ভেলায় করে বহুমূল্য সেগুন কাঠ পাচারের চেষ্টা হচ্ছিল। স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনাটি বুঝতে পেরে বন দপ্তরে খবর দেন। পরে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে বন দপ্তর বিপুল পরিমাণ বেআইনি কাঠ উদ্ধার করে। বাজেয়াপ্ত করা কাঠ জামালদহ বনাঞ্চলের বিট অফিসে রাখা হয়েছে। এই ঘটনায় জড়িতদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। জামালদহ বনাঞ্চলের বিট অফিসার পরিমল বর্মন জানিয়েছেন, বেআইনি কাঠ পাচার রুখতে বনদপ্তর আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে। এদিকে কাঠ পাচারের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার না করা হলে স্থানীয় বাসিন্দারা আন্দোলনে নামবেন বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। মেখলিগঞ্জ থানার পুলিশ জানিয়েছে, লিখিত অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থাই নেওয়া হবে।

- Advertisement -